Limited-Time Discount | Enroll today and learn risk-free with our 30-day money-back guarantee.

Login

SIGN UP for FREE

ORDER NOW

Login
thumbnail

99designs মার্কেটপ্লেসের গুরুত্বপূন কিছু বিষয়

99designs ফ্রিল্যান্সারদের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটা মার্কেটপ্লেস। কারন এটা টাকা উপার্জন প্রতিযোগিতার একটি অন্যতম মার্কেটপ্লেস। কিন্তু এখানে শুধু গ্রাফিক ডিজাইন নিয়েই প্রতিযোগিতা হয়। এর মধ্যে লোগো ডিজাইন নিয়ে সবচেয়ে বেশি প্রতিযোগিতা হয়। এই ওয়েবসাইটের কাজ গুলোকে কনটেস্ট বা প্রতিযোগিতা বলে। এখানে ক্লায়েন্টকে কনটেস্ট হোল্ডার বলে এবং অংশগ্রহণকারী ফ্রিল্যান্সারদেরকে ডিজাইনার বলা হয়।
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
চলুন জেনে নিই এই মার্কেটপ্লেসে জয়ী হতে হলে আপনাকে কি কি বিষয় জানতে হবে?
এই মাঠটি সুযোগ এবং সম্ভাব্যের অনেক কাছে।একটি গড়পড়তা নকশাকারীর $৫০০০ থেকে $২০০ একটি মাসের মধ্যে আয় করার ভাল সুযোগ রয়েছে। আপনি আপনার পূর্ণ সময় কাজে প্রস্থান করতে সক্ষম। যেহেতু এখানে অনেক উপায় রয়েছে এবং আমি পরিচিত উপায়গুলো নিয়ে আলোচনা করব,তাই আপনাকে স্হির করতে হবে আপনার উপযোগী মাধ্যমি।আমার আলোচিত ওয়েবসাইটের যেকোনটিতে আপনি কাজ করতে পারেন এবং একটি Freelance গ্রাফিক নকশাকারী হিসেবে আয় করতে পারেন।।
নতুন কনটেস্ট-এ অংশগ্রহণঃ
আপনাকে এই প্রথমে দেখতে হবে কোন কনটেস্ট নতুন রিলিজ হয়েছে এবং উক্ত কনটেস্ট-এ কতোগুলো ডিজাইন সাবমিটেট হয়েছে। যদি কনটেস্ট-এ বেশি ডিজাইন সাবমিট না হয় তাহলে আপনি এই কনটেস্ট-এ যোগ দিতে পারেন। কারন কনটেস্ট হোল্ডাররা প্রথম দিকের সাবমিটকৃত ডিজাইনের প্রতি বেশি নজর দেয়। কিন্তু এখানে একটু সমস্যা রয়েছে। এখানে আপনি যদি আগেই আপনার ডিজাইন সাবমিট করে ফেলেন তাহলে আপনার ডিজাইন কপি করে অন্যজন ডিজাইন করতে পারে। সে জন্য আপনাকে ভালো মানের ডিজাইন করতে হবে, যেনো অন্য কেউ আপনার ডিজাইন কপি করে কাজ করলেও আপনার ডিজাইনের মতো ভালো মানের না হয়।
কনটেস্ট হোল্ডার এর প্রোফাইল চেকঃ
বাহিরের জগতের মতো এখানেও দুর্নীতি হয়। এখানে অনেকেই রয়েছেন যারা নিম্ন মানের ডিজাইনার আর তারা গ্যারান্টি ছাড়া প্রতিযোগিতা সাবমিট করে। সেখানে না বুঝে অনেকে ডিজাইন সাবমিট করে ফেলে আর সেই ডিজাইনার ডিজাইনগুলো নিয়ে ফেলে এবং পরবর্তীতে কনটেস্ট বন্ধ করে দেয়। তাই কে কোন কনটেস্ট শুরু করেছে সেইটা দেখে নেওয়া ভালো। এক্ষেত্রে আপনার দেখা উচিৎ আপনি যে কনটেস্ট হোল্ডারের কাজ করবেন সেই কনটেস্ট হোল্ডার এর আগে কনটেস্ট করেছে কি না। আর যদি কনটেস্ট করে থাকে তাহলে ডিজাইনারকে সময় মতো টাকা পরিশোধ করেছে কিনা। এটা করলে আপনি কনটেস্ট হোল্ডারের প্রোফাইল সহ তিনি কি ধরনের ডিজাইন পছন্দ করেন সেইটা যানতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার ডিজাইন করতে সুবিধা হবে।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
ব্রিফঃ
99designs-এ ব্রিফ অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সে জন্য আপনাকে সব সময় ব্রিফ ফলো করতে হবে। যেমন ধরুন কনটেস্ট-এ কনটেস্ট হোল্ডার টাইগার নিয়ে একটা লোগো ডিজাইন চেয়েছে। সেক্ষেত্রে আপনি একটি টাইগার নিয়ে ডিজাইন করলেন এবং আরো কয়েকটি ডিজাইন করলেন টাইগারের পায়ের ছাপ বা মাথা নিয়ে। আর ডিজাইনের মধ্যে এমন কিছু ভাবমূর্তি আনুন যেনো আপনি বেষ্ট।
ডিজাইনঃ
আপনার কনটেস্ট সিলেক্ট করার পরে অর্থাৎ আপনি কোন ডিজাইন করবেন সেইটা সম্পর্কে চিন্তা করার পরে ডিজাইন করতে বসে যান। কিন্তু আপনাকে ডিজাইন করতে গিয়ে থায় রাখতে হবে, আপনি যে ডিজাইন করছেন সেই ডিজাইনটা যেনো সিম্পল হয় এবং কি বিষয়ে ডিজাইন করলেন সেইটা যেনো সহজেই বোঝা যায়।
ডিজাইন মকাপঃ
আপনি যে ডিজাইনটা করলেন সেই ডিজাইনটা মকাপ করতে চেষ্টা করুন। কারন যেকোনো ডিজাইন মকাপ করলে ডিজাইন অনেক সুন্দর দেখা যায়। কিন্তু যখন ডিজাইন সাবমিট করবেন তখন মকাপ করা ডিজাইনের সাথে নরমাল কপিও দিতে হবে।
ফিডব্যাকঃ
সবসময় কনটেস্ট হোল্ডারের থেকে ফিডব্যাক চাইবেন। এতে করে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ডিজাইন তার কাছে কেমন লেগেছে, কোথায় সমস্যা হয়েছে। এতে করে আপনি পরবর্তীতে আরো ভালো মানের ডিজাইন করতে পারবেন।
রিভিশন শেষ করাঃ
আপনার ডিজাইন কনটেস্ট হোল্ডারের পছন্দ হয় তাহলে তিনি আপনাকে আপনার ডিজাইন রিভিশনের জন্য পাঠাবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে যত তারাতারি সম্ভব সেটা ঠিক ঠাক মতো সম্পুন্ন করে জমা দিয়ে দিতে হবে। কারন কনটেস্ট হোল্ডার আপনার মতো আরো প্রতিযোগীকে এরকম ডিজাইন রিভিশনের জন্য পাঠিয়েছে এবং তারাও তারাতারি ডিজাইন গুলো জমা দিতে চাইবে। এটাতে আপনাকে স্পিডিটির টেস্ট দিতে হবে।
কনটেস্ট-এ হেরে গেলেঃ
যদি কোন কারনে কনটেস্ট হেরে যান তাহলে আপনার সাবমিট করা ডিজাইন তুলে নিন। আর উক্ত ডিজাইন অন্য কোনো মার্কেটপ্লেসে ব্যবহার করুন। তারপরে কেনো আপনি উক্ত কনটেস্ট-এ উইন না হতে পারেননি সেই সমস্যাটা খুজে বের করুন এবং পরবর্তীতে অন্য ডিজাইনের প্রতি মনোনিবেশ করুন। এতে করে আপনার অভিজ্ঞতা বাড়বে।
এখন জেনে নিই 99designs-এ সফল হওয়ার জন্য কিছু টিপসঃ
আসলে কিছু কিছু বিষয় রয়েছে যেগুলোতে কাজ করে সফল হওয়া যায়না। সেরকম একটা কাজ হলো 99designs মার্কেটপ্লেস। এখানে আপনাকে ছোটো ছোটো কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। তাহলে আপনি এক দিন সফল হবেন।
চলুন জেনে নিই সেই সফল হওয়ার মূলমন্ত্রগুলো
নিজের পরিচয়ঃ
আপনি যখন কোন ডিজাইন সাবমিট করবেন তখন বায়ারকে আপনার সম্পর্কে কিছু কনটেন্ট লিখে পাঠাবেন। কিন্তু সেই কনটেন্টটা বেশি বড়ো হওয়া চলবেনা। এখানে আপনি কি কি কাজ করে পারেন সেইটা তুলে ধরবেন।
ডিজাইনের বিস্তারিত তুলে ধরাঃ
আপনি কি সম্পর্কে ডিজাইন করলেন, কোন কোন ক্ষেত্রে ডিজাইনটি ব্যবহার করা যাবে, কি কি ব্যবহার করে ডিজাইনটি করলেন সেইটা আপনার ডিজাইনের ডেসক্রিপশনে তুলে ধরবেন।
ডিজাইনের মানঃ
আপনি যে ডিজাইনটি করছেন সেই ডিজাইন মানসম্মত হচ্ছে কিনা সেইটা মাথায় রাখতে হবে। কারন আপনার ডিজাইন যদি ভালো মানের না হয় তাহলে বায়ার আপনার ডিজাইন ক্রয় করবেনা।
প্রশংসাঃ
যেকোনো ডিজাইনারের ডিজাইন দেখে আপনাকে ওই ডিজাইনের কমেন্ট বক্সে ভালো রকমের কমেন্ট করতে হবে। তার পরে ওই ডিজাইনার আপনার ডিজাইনের ওপরেও কমেন্ট করতে পারে। এতে করে আপনার ডিজাইনের মান ভালো পর্যায়ে চলে যেতে পারে।
আশা করি উপরিক্ত বিষয় সমূহ মাথায় রেখে কাজ চালিয়ে গেলে আপনি অনেক সহজেই 99designs-এ সফলতা অর্জন করতে পারবেন। আমার কথা না বাড়িয়ে এখানিই শেষ করছি। আসসালামুআলাইকুম।

|| Design by Mamunur Rashid ||

Payment
গ্রাফিক ডিজাইন ওয়েব ডিজাইন আউটসোর্সিং এম এস অফিস কম্পিউটার টিপস ফটো এডিটিং
thumbnail

99designs মার্কেটপ্লেসের গুরুত্বপূন কিছু বিষয়

99designs ফ্রিল্যান্সারদের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটা মার্কেটপ্লেস। কারন এটা টাকা উপার্জন প্রতিযোগিতার একটি অন্যতম মার্কেটপ্লেস। কিন্তু এখানে শুধু গ্রাফিক ডিজাইন নিয়েই প্রতিযোগিতা হয়। এর মধ্যে লোগো ডিজাইন নিয়ে সবচেয়ে বেশি প্রতিযোগিতা হয়। এই ওয়েবসাইটের কাজ গুলোকে কনটেস্ট বা প্রতিযোগিতা বলে। এখানে ক্লায়েন্টকে কনটেস্ট হোল্ডার বলে এবং অংশগ্রহণকারী ফ্রিল্যান্সারদেরকে ডিজাইনার বলা হয়।
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
চলুন জেনে নিই এই মার্কেটপ্লেসে জয়ী হতে হলে আপনাকে কি কি বিষয় জানতে হবে?
এই মাঠটি সুযোগ এবং সম্ভাব্যের অনেক কাছে।একটি গড়পড়তা নকশাকারীর $৫০০০ থেকে $২০০ একটি মাসের মধ্যে আয় করার ভাল সুযোগ রয়েছে। আপনি আপনার পূর্ণ সময় কাজে প্রস্থান করতে সক্ষম। যেহেতু এখানে অনেক উপায় রয়েছে এবং আমি পরিচিত উপায়গুলো নিয়ে আলোচনা করব,তাই আপনাকে স্হির করতে হবে আপনার উপযোগী মাধ্যমি।আমার আলোচিত ওয়েবসাইটের যেকোনটিতে আপনি কাজ করতে পারেন এবং একটি Freelance গ্রাফিক নকশাকারী হিসেবে আয় করতে পারেন।।
নতুন কনটেস্ট-এ অংশগ্রহণঃ
আপনাকে এই প্রথমে দেখতে হবে কোন কনটেস্ট নতুন রিলিজ হয়েছে এবং উক্ত কনটেস্ট-এ কতোগুলো ডিজাইন সাবমিটেট হয়েছে। যদি কনটেস্ট-এ বেশি ডিজাইন সাবমিট না হয় তাহলে আপনি এই কনটেস্ট-এ যোগ দিতে পারেন। কারন কনটেস্ট হোল্ডাররা প্রথম দিকের সাবমিটকৃত ডিজাইনের প্রতি বেশি নজর দেয়। কিন্তু এখানে একটু সমস্যা রয়েছে। এখানে আপনি যদি আগেই আপনার ডিজাইন সাবমিট করে ফেলেন তাহলে আপনার ডিজাইন কপি করে অন্যজন ডিজাইন করতে পারে। সে জন্য আপনাকে ভালো মানের ডিজাইন করতে হবে, যেনো অন্য কেউ আপনার ডিজাইন কপি করে কাজ করলেও আপনার ডিজাইনের মতো ভালো মানের না হয়।
কনটেস্ট হোল্ডার এর প্রোফাইল চেকঃ
বাহিরের জগতের মতো এখানেও দুর্নীতি হয়। এখানে অনেকেই রয়েছেন যারা নিম্ন মানের ডিজাইনার আর তারা গ্যারান্টি ছাড়া প্রতিযোগিতা সাবমিট করে। সেখানে না বুঝে অনেকে ডিজাইন সাবমিট করে ফেলে আর সেই ডিজাইনার ডিজাইনগুলো নিয়ে ফেলে এবং পরবর্তীতে কনটেস্ট বন্ধ করে দেয়। তাই কে কোন কনটেস্ট শুরু করেছে সেইটা দেখে নেওয়া ভালো। এক্ষেত্রে আপনার দেখা উচিৎ আপনি যে কনটেস্ট হোল্ডারের কাজ করবেন সেই কনটেস্ট হোল্ডার এর আগে কনটেস্ট করেছে কি না। আর যদি কনটেস্ট করে থাকে তাহলে ডিজাইনারকে সময় মতো টাকা পরিশোধ করেছে কিনা। এটা করলে আপনি কনটেস্ট হোল্ডারের প্রোফাইল সহ তিনি কি ধরনের ডিজাইন পছন্দ করেন সেইটা যানতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার ডিজাইন করতে সুবিধা হবে।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
ব্রিফঃ
99designs-এ ব্রিফ অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সে জন্য আপনাকে সব সময় ব্রিফ ফলো করতে হবে। যেমন ধরুন কনটেস্ট-এ কনটেস্ট হোল্ডার টাইগার নিয়ে একটা লোগো ডিজাইন চেয়েছে। সেক্ষেত্রে আপনি একটি টাইগার নিয়ে ডিজাইন করলেন এবং আরো কয়েকটি ডিজাইন করলেন টাইগারের পায়ের ছাপ বা মাথা নিয়ে। আর ডিজাইনের মধ্যে এমন কিছু ভাবমূর্তি আনুন যেনো আপনি বেষ্ট।
ডিজাইনঃ
আপনার কনটেস্ট সিলেক্ট করার পরে অর্থাৎ আপনি কোন ডিজাইন করবেন সেইটা সম্পর্কে চিন্তা করার পরে ডিজাইন করতে বসে যান। কিন্তু আপনাকে ডিজাইন করতে গিয়ে থায় রাখতে হবে, আপনি যে ডিজাইন করছেন সেই ডিজাইনটা যেনো সিম্পল হয় এবং কি বিষয়ে ডিজাইন করলেন সেইটা যেনো সহজেই বোঝা যায়।
ডিজাইন মকাপঃ
আপনি যে ডিজাইনটা করলেন সেই ডিজাইনটা মকাপ করতে চেষ্টা করুন। কারন যেকোনো ডিজাইন মকাপ করলে ডিজাইন অনেক সুন্দর দেখা যায়। কিন্তু যখন ডিজাইন সাবমিট করবেন তখন মকাপ করা ডিজাইনের সাথে নরমাল কপিও দিতে হবে।
ফিডব্যাকঃ
সবসময় কনটেস্ট হোল্ডারের থেকে ফিডব্যাক চাইবেন। এতে করে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ডিজাইন তার কাছে কেমন লেগেছে, কোথায় সমস্যা হয়েছে। এতে করে আপনি পরবর্তীতে আরো ভালো মানের ডিজাইন করতে পারবেন।
রিভিশন শেষ করাঃ
আপনার ডিজাইন কনটেস্ট হোল্ডারের পছন্দ হয় তাহলে তিনি আপনাকে আপনার ডিজাইন রিভিশনের জন্য পাঠাবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে যত তারাতারি সম্ভব সেটা ঠিক ঠাক মতো সম্পুন্ন করে জমা দিয়ে দিতে হবে। কারন কনটেস্ট হোল্ডার আপনার মতো আরো প্রতিযোগীকে এরকম ডিজাইন রিভিশনের জন্য পাঠিয়েছে এবং তারাও তারাতারি ডিজাইন গুলো জমা দিতে চাইবে। এটাতে আপনাকে স্পিডিটির টেস্ট দিতে হবে।
কনটেস্ট-এ হেরে গেলেঃ
যদি কোন কারনে কনটেস্ট হেরে যান তাহলে আপনার সাবমিট করা ডিজাইন তুলে নিন। আর উক্ত ডিজাইন অন্য কোনো মার্কেটপ্লেসে ব্যবহার করুন। তারপরে কেনো আপনি উক্ত কনটেস্ট-এ উইন না হতে পারেননি সেই সমস্যাটা খুজে বের করুন এবং পরবর্তীতে অন্য ডিজাইনের প্রতি মনোনিবেশ করুন। এতে করে আপনার অভিজ্ঞতা বাড়বে।
এখন জেনে নিই 99designs-এ সফল হওয়ার জন্য কিছু টিপসঃ
আসলে কিছু কিছু বিষয় রয়েছে যেগুলোতে কাজ করে সফল হওয়া যায়না। সেরকম একটা কাজ হলো 99designs মার্কেটপ্লেস। এখানে আপনাকে ছোটো ছোটো কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। তাহলে আপনি এক দিন সফল হবেন।
চলুন জেনে নিই সেই সফল হওয়ার মূলমন্ত্রগুলো
নিজের পরিচয়ঃ
আপনি যখন কোন ডিজাইন সাবমিট করবেন তখন বায়ারকে আপনার সম্পর্কে কিছু কনটেন্ট লিখে পাঠাবেন। কিন্তু সেই কনটেন্টটা বেশি বড়ো হওয়া চলবেনা। এখানে আপনি কি কি কাজ করে পারেন সেইটা তুলে ধরবেন।
ডিজাইনের বিস্তারিত তুলে ধরাঃ
আপনি কি সম্পর্কে ডিজাইন করলেন, কোন কোন ক্ষেত্রে ডিজাইনটি ব্যবহার করা যাবে, কি কি ব্যবহার করে ডিজাইনটি করলেন সেইটা আপনার ডিজাইনের ডেসক্রিপশনে তুলে ধরবেন।
ডিজাইনের মানঃ
আপনি যে ডিজাইনটি করছেন সেই ডিজাইন মানসম্মত হচ্ছে কিনা সেইটা মাথায় রাখতে হবে। কারন আপনার ডিজাইন যদি ভালো মানের না হয় তাহলে বায়ার আপনার ডিজাইন ক্রয় করবেনা।
প্রশংসাঃ
যেকোনো ডিজাইনারের ডিজাইন দেখে আপনাকে ওই ডিজাইনের কমেন্ট বক্সে ভালো রকমের কমেন্ট করতে হবে। তার পরে ওই ডিজাইনার আপনার ডিজাইনের ওপরেও কমেন্ট করতে পারে। এতে করে আপনার ডিজাইনের মান ভালো পর্যায়ে চলে যেতে পারে।
আশা করি উপরিক্ত বিষয় সমূহ মাথায় রেখে কাজ চালিয়ে গেলে আপনি অনেক সহজেই 99designs-এ সফলতা অর্জন করতে পারবেন। আমার কথা না বাড়িয়ে এখানিই শেষ করছি। আসসালামুআলাইকুম।

আপনার মতামত লিখুনঃ