Limited-Time Discount | Enroll today and learn risk-free with our 30-day money-back guarantee.

Login

SIGN UP for FREE

ORDER NOW

Login
thumbnail

ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস এর জনপ্রিয় কিছু কাজ

ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আপনাকে বলে দিতে পারবে না কোন বিষয়ের উপর কাজ করলে আপনি বেশি আয় করতে পারবেন। কারন এ পুরো বিষয়টি নির্ভর করবে আপনার যোগ্যতা, দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার উপর। এখন আপনার প্রশ্ন থাকতে পারে যে, আপনি কোন বিষয়ের ওপর ফ্রিল্যান্সিং করবেন। এই প্রশ্নটির উত্তর দেওয়ার আগে আপনাকে আমি বলবো, ফ্রিল্যান্সিং কি আপনার ভালো লাগে? নাকি শুধু অর্থ উপার্জনের জন্য এই পেশায় নেমে পরেছেন?
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কিভাবে করে এটা বুঝে থাকেন, তাহলে আশা করতেই পারি আপনি ভালোভাবে বুঝে যাবেন কোন কারনে ফ্রিল্যান্সিং করা উচিত। সোজা বাংলায় বললে, ভালো লাগা থেকে যে কাজ করা হয়, সেখানে সাফল্য অবধারিত। যদি সাফল্য নাও আসে, সেখান থেকে আপনি এমন কিছু শিখবেন যা আপনাকে আরো বড় হতে সাহায্য করবে।
ফ্রিল্যান্সিং অবশ্যই ভালো লাগা থেকে করা উচিত। কিন্তু তার আগে আপনাকে জানতে হবে আপনার এমন কি স্কিল আছে যা আপনি অন্যকে শেখাতে পারেন অথবা আপনার স্কিল এর মাধ্যমে অন্য একজন উপকৃত হবে। আমি বরাবরই বলি, কারো দ্বারা মোটিভেটেড হয়ে বা অন্য কারো আয় দেখে কখনোই আপনার কাজের সেক্টর ঠিক করা উচিত হবে না। এমন হতে পারে আপনি বিভিন্ন স্টাইলে অনেক সুন্দর হাতে লিখতে পারেন। সেক্ষত্রে আপনার চেষ্টা এবং কাজের সঠিক উপায় জানা থাকলে আপনি আপনার এই স্কিল এর মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন।
আবার ধরুন, আপনি খুব ভালো গান গাইতে পারেন, চাইলে আপনার গাওয়া গান রেকর্ড করে সার্ভিস দিতে পারেন। এরকম আপনার হয়তো কন্টেন্ট রাইটিং অনেক ভালো, হয়তোবা আপনি ভালো গিটার বাজাতে পারেন। মোট কথা, যদি আপনি কাজের সঠিক উপায় জানেন এবং আপনার যোগাযোগ দক্ষতা ভালো হয়, তবে আপনি যেকোনো স্কিল কাজে লাগিয়ে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন। তবে বর্তমানে বাংলাদেশের গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপার, ডিজিটাল মার্কেটিং সহ বিভিন্ন স্কিল নিয়ে প্রায় ২০ লাখের বেশি মানুষ ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করছেন বা কাজের চেষ্টা করছেন।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
এখন আমি বলতে পারি আপনি গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ করতে পারেন। কারণ এই কাজের চাহিদা বর্তমানে অনেক বেশি। আপনি ইন্টারনেটে ঘাঁটাঘাঁটি করলে বুঝতে পারবেন গ্রাফিক ডিজাইন কি এবং গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ কি কি? জানা গেছে একজন একই গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ করে মাসে হয়তো ৫০০/৬০০ ডলার আয় করছেন।
এখন আসি আমাদের মুল বিষয় ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস নিয়ে। চলুন জেনে নিই এই মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে>>>
ফ্রিল্যান্সার একটি জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস। এই মার্কেটপ্লেসে নতুন পুরাতন ফ্রিল্যান্সাররা অনেক কাজ করে আসছে। নতুন ফ্রিল্যান্সাররা খুব সহজেই এখান থেকে কাজ পেয়ে থাকে। মূলত সেজন্যই এর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি।
আসুন বিস্তারিত জেনে নিই এখানে আপনি কি কি কাজ পাবেন
ওয়েব ডিজাইনঃ
এ ক্যাটাগরি মূলত ওয়েবসাইট এর Fronted কাজ। এতে রয়েছে ওয়েবসাইট তৈরী থিম বা টেমপ্লেটে তৈরী, ইমেইল টেম্পলেট, অ্যাডমিন প্যানেল, ল্যান্ডিং পেজ তৈরী ইত্যাদি কাজ ।
ওয়েব ডেভলপমেন্টঃ
এ ক্যাটাগরি মূলত ওয়েবসাইট এর backend কাজ পাওয়া যায়। এ তে রয়েছে ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরী, ওয়ার্ড প্রেস, জুমলা থিম বা টেমপ্লেটে তৈরী, ওয়েব এপ্লিকেশন তৈরী ইত্যাদি কাজ ।
গ্রাফিক্স ডিজাইনঃ
এ ক্যাটাগরি তে রয়েছে গ্রাফিক-এর যত ধরনের কাজ যেমন লোগো ডিজাইন, ওয়েব টেম্পলেট ডিজাইন, ইমেইল টেম্পলেট ডিজাইন, পোস্টার ডিজাইন, সোশ্যাল মিডিয়া কভার ডিজাইন, বিভিন্ন দরনের অ্যানিমেশন, কার্টন তৈরী ইত্যাদি।
মোবাইল এপ্লিকেশন তৈরীঃ
এ ক্যাটাগরি তে মোবাইল এপ্লিকেশন তৈরী কাজ পাওয়া যায়।
কন্সালটেন্সিঃ
এ ক্যাটাগরি তে রয়েছে ভিবিন্ন ধরনের কন্সালটেন্সি কাজ পাওয়া যায়।
অ্যাকাউন্টিং, হিউম্যান রিসোর্সঃ
এ ক্যাটাগরি তে রয়েছে অ্যাকাউন্টিং, হিউম্যান রিসোর্স, লিগ্যাল উপদেষ্টা ইত্যাদির কাজ পাওয়া যায়।
ফটোগ্রাফিঃ
এখানে আপনি আপনার শখের বসে তোলা বা প্রফেসনাল ছবি বিক্রি অথবা ক্লায়েন্ট এর প্রয়োজন মত ছবি তুলার কাজ কজ করতে পারেন ।
ইন্টারনেট মার্কেটিং,সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং:
এই খানে আপনি এসইও এবং সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর কাজ পাওয়া যায়।
আর্টিকেল রাইটিং:
এই ক্যাটাগরি তে আপনি বিভিন্ন দরনের আর্টিকেল রাইটিং, প্রোডাক্ট ডিটেলস, কোন কোম্পানি এর কনটেন্ট তৈরী কাজ পাওয়া যায়।
ডাটা এন্ট্রিঃ
এই ক্যাটাগরি তে রয়েছে বিভিন্ন দরনের ডাটা এন্ট্রি যেমন PDF থেকে ওয়ার্ড ফাইল এ কনভার্ট , কাপচা এন্ট্রি এর কাজ পাওয়া যায়।
এডমিন সাপোর্ট, কাস্টমার সাপোর্টঃ
এই ক্যাটাগরি তে আপনি অন্য কোন কোম্পানি বা বাক্তিগত কারো এসিসটান্ট, কাস্টমার সাপোর্ট, কল সেন্টার ইত্যাদি কাজ করতে পারবেন ।
সফ্টওয়্যার ডেভলপমেন্টঃ
এই ক্যাটাগরি তে সফটওয়্যার তৈরী, কোয়ালিটি পরীক্ষা, ইত্যাদি php, java, .net, sql, mysql,ওরাকল নিয়ে কাজ করা যায় ।
জানতে পারলাম ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেসে কি কি কাজ পাওয়া যায়।
আশা করি আমার এই ছোট্ট লেখা আপনাদের অনেক কাজে আসতে পারে। আগামীতে নতুন কিছু নিয়ে লেখার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ্‌। সবাইকে আমার লেখনীটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আসসালামুআলাইকুম।

|| Design by Mamunur Rashid ||

Payment
গ্রাফিক ডিজাইন ওয়েব ডিজাইন আউটসোর্সিং এম এস অফিস কম্পিউটার টিপস ফটো এডিটিং
thumbnail

ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস এর জনপ্রিয় কিছু কাজ

ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আপনাকে বলে দিতে পারবে না কোন বিষয়ের উপর কাজ করলে আপনি বেশি আয় করতে পারবেন। কারন এ পুরো বিষয়টি নির্ভর করবে আপনার যোগ্যতা, দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার উপর। এখন আপনার প্রশ্ন থাকতে পারে যে, আপনি কোন বিষয়ের ওপর ফ্রিল্যান্সিং করবেন। এই প্রশ্নটির উত্তর দেওয়ার আগে আপনাকে আমি বলবো, ফ্রিল্যান্সিং কি আপনার ভালো লাগে? নাকি শুধু অর্থ উপার্জনের জন্য এই পেশায় নেমে পরেছেন?
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কিভাবে করে এটা বুঝে থাকেন, তাহলে আশা করতেই পারি আপনি ভালোভাবে বুঝে যাবেন কোন কারনে ফ্রিল্যান্সিং করা উচিত। সোজা বাংলায় বললে, ভালো লাগা থেকে যে কাজ করা হয়, সেখানে সাফল্য অবধারিত। যদি সাফল্য নাও আসে, সেখান থেকে আপনি এমন কিছু শিখবেন যা আপনাকে আরো বড় হতে সাহায্য করবে।
ফ্রিল্যান্সিং অবশ্যই ভালো লাগা থেকে করা উচিত। কিন্তু তার আগে আপনাকে জানতে হবে আপনার এমন কি স্কিল আছে যা আপনি অন্যকে শেখাতে পারেন অথবা আপনার স্কিল এর মাধ্যমে অন্য একজন উপকৃত হবে। আমি বরাবরই বলি, কারো দ্বারা মোটিভেটেড হয়ে বা অন্য কারো আয় দেখে কখনোই আপনার কাজের সেক্টর ঠিক করা উচিত হবে না। এমন হতে পারে আপনি বিভিন্ন স্টাইলে অনেক সুন্দর হাতে লিখতে পারেন। সেক্ষত্রে আপনার চেষ্টা এবং কাজের সঠিক উপায় জানা থাকলে আপনি আপনার এই স্কিল এর মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন।
আবার ধরুন, আপনি খুব ভালো গান গাইতে পারেন, চাইলে আপনার গাওয়া গান রেকর্ড করে সার্ভিস দিতে পারেন। এরকম আপনার হয়তো কন্টেন্ট রাইটিং অনেক ভালো, হয়তোবা আপনি ভালো গিটার বাজাতে পারেন। মোট কথা, যদি আপনি কাজের সঠিক উপায় জানেন এবং আপনার যোগাযোগ দক্ষতা ভালো হয়, তবে আপনি যেকোনো স্কিল কাজে লাগিয়ে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন। তবে বর্তমানে বাংলাদেশের গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপার, ডিজিটাল মার্কেটিং সহ বিভিন্ন স্কিল নিয়ে প্রায় ২০ লাখের বেশি মানুষ ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করছেন বা কাজের চেষ্টা করছেন।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
এখন আমি বলতে পারি আপনি গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ করতে পারেন। কারণ এই কাজের চাহিদা বর্তমানে অনেক বেশি। আপনি ইন্টারনেটে ঘাঁটাঘাঁটি করলে বুঝতে পারবেন গ্রাফিক ডিজাইন কি এবং গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ কি কি? জানা গেছে একজন একই গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ করে মাসে হয়তো ৫০০/৬০০ ডলার আয় করছেন।
এখন আসি আমাদের মুল বিষয় ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস নিয়ে। চলুন জেনে নিই এই মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে>>>
ফ্রিল্যান্সার একটি জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস। এই মার্কেটপ্লেসে নতুন পুরাতন ফ্রিল্যান্সাররা অনেক কাজ করে আসছে। নতুন ফ্রিল্যান্সাররা খুব সহজেই এখান থেকে কাজ পেয়ে থাকে। মূলত সেজন্যই এর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি।
আসুন বিস্তারিত জেনে নিই এখানে আপনি কি কি কাজ পাবেন
ওয়েব ডিজাইনঃ
এ ক্যাটাগরি মূলত ওয়েবসাইট এর Fronted কাজ। এতে রয়েছে ওয়েবসাইট তৈরী থিম বা টেমপ্লেটে তৈরী, ইমেইল টেম্পলেট, অ্যাডমিন প্যানেল, ল্যান্ডিং পেজ তৈরী ইত্যাদি কাজ ।
ওয়েব ডেভলপমেন্টঃ
এ ক্যাটাগরি মূলত ওয়েবসাইট এর backend কাজ পাওয়া যায়। এ তে রয়েছে ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরী, ওয়ার্ড প্রেস, জুমলা থিম বা টেমপ্লেটে তৈরী, ওয়েব এপ্লিকেশন তৈরী ইত্যাদি কাজ ।
গ্রাফিক্স ডিজাইনঃ
এ ক্যাটাগরি তে রয়েছে গ্রাফিক-এর যত ধরনের কাজ যেমন লোগো ডিজাইন, ওয়েব টেম্পলেট ডিজাইন, ইমেইল টেম্পলেট ডিজাইন, পোস্টার ডিজাইন, সোশ্যাল মিডিয়া কভার ডিজাইন, বিভিন্ন দরনের অ্যানিমেশন, কার্টন তৈরী ইত্যাদি।
মোবাইল এপ্লিকেশন তৈরীঃ
এ ক্যাটাগরি তে মোবাইল এপ্লিকেশন তৈরী কাজ পাওয়া যায়।
কন্সালটেন্সিঃ
এ ক্যাটাগরি তে রয়েছে ভিবিন্ন ধরনের কন্সালটেন্সি কাজ পাওয়া যায়।
অ্যাকাউন্টিং, হিউম্যান রিসোর্সঃ
এ ক্যাটাগরি তে রয়েছে অ্যাকাউন্টিং, হিউম্যান রিসোর্স, লিগ্যাল উপদেষ্টা ইত্যাদির কাজ পাওয়া যায়।
ফটোগ্রাফিঃ
এখানে আপনি আপনার শখের বসে তোলা বা প্রফেসনাল ছবি বিক্রি অথবা ক্লায়েন্ট এর প্রয়োজন মত ছবি তুলার কাজ কজ করতে পারেন ।
ইন্টারনেট মার্কেটিং,সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং:
এই খানে আপনি এসইও এবং সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর কাজ পাওয়া যায়।
আর্টিকেল রাইটিং:
এই ক্যাটাগরি তে আপনি বিভিন্ন দরনের আর্টিকেল রাইটিং, প্রোডাক্ট ডিটেলস, কোন কোম্পানি এর কনটেন্ট তৈরী কাজ পাওয়া যায়।
ডাটা এন্ট্রিঃ
এই ক্যাটাগরি তে রয়েছে বিভিন্ন দরনের ডাটা এন্ট্রি যেমন PDF থেকে ওয়ার্ড ফাইল এ কনভার্ট , কাপচা এন্ট্রি এর কাজ পাওয়া যায়।
এডমিন সাপোর্ট, কাস্টমার সাপোর্টঃ
এই ক্যাটাগরি তে আপনি অন্য কোন কোম্পানি বা বাক্তিগত কারো এসিসটান্ট, কাস্টমার সাপোর্ট, কল সেন্টার ইত্যাদি কাজ করতে পারবেন ।
সফ্টওয়্যার ডেভলপমেন্টঃ
এই ক্যাটাগরি তে সফটওয়্যার তৈরী, কোয়ালিটি পরীক্ষা, ইত্যাদি php, java, .net, sql, mysql,ওরাকল নিয়ে কাজ করা যায় ।
জানতে পারলাম ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেসে কি কি কাজ পাওয়া যায়।
আশা করি আমার এই ছোট্ট লেখা আপনাদের অনেক কাজে আসতে পারে। আগামীতে নতুন কিছু নিয়ে লেখার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ্‌। সবাইকে আমার লেখনীটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আসসালামুআলাইকুম।

আপনার মতামত লিখুনঃ