Limited-Time Discount | Enroll today and learn risk-free with our 30-day money-back guarantee.

Login

SIGN UP for FREE

ORDER NOW

Login
thumbnail

জনপ্রিয় কিছু বিষয়ে ঘরে বসে আউটসোর্সিং করুন

অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে চান? কোথায় এবং কি বিষয় অউটসোর্সিং করবেন তা ভেবে পাচ্ছেন না? আপনি হয়তো জানেন না ইন্টারনেট জগতে কিছু কিছু কাজ যা আপনি বাড়িতে বসে থেকেই করতে পারবেন। আপনি যদি একজন ছাত্র, মা, কর্মচারী, বেকার, গৃহিনী বা কোনো জায়গায় কাজ করেন, কিন্তু আপনার সুবিধার জন্য আপনি বাড়িতে থেকে কাজ করতে চান, তাহলে আমার এই আর্টিকেলটি আপনার অনেক কাজে আসবে। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাকঃ
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
আর্টিকেল লেখাঃ
আপনি যদি লেখা লেখিতে ভালো হন, তাহলে অন্য লোকের জন্য ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ও ওয়েবসাইটের জন্য কনটেন্ট লেখা শুরু করতে পারেন। ইন্টারনেটের সবকিছু কনটেন্টের উপর নির্ভর করে। আপনি ইন্টারনেটে যা কিছু পড়ছেন তার সবকিছুই আপনার আমার মত মানুষই লিখেছেন। বিভিন্ন ওয়েবসাইটে হয়তো কেউ পার্ট টাইম কন্টেন্ট লেখক হিসেবে বা আবার কেউ ফুল-টাইম কন্টেন্ট লেখক হিসেবে কাজ করছেন।
আপনি ভাবছেন কনটেন্ট লেখা অনেক কঠিনতর কাজ?কনটেন্ট লেখা কঠিন কোন কাজ নয়। আমাদের সকলের কিছু না কিছু বিষয়ে দক্ষতা আছে। তাই কোন বিষয়ে কিছু লেখা কোন ব্যাপার নয়। ধরা যাক আপনি অটোমোবাইল এর উপর ব্যাচেলর ডিগ্রি নিয়েছেন, সুতরাং আপনার অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রির ওপর খুব ভাল জ্ঞান আছে আর তাই আপনি অটোমোবাইল এর উপর যে কোন বিষয় সম্পর্কে লিখতে পারেন। আপনি চাইলে ওডেস্ক, ইল্যান্স ও কিছু অন্যান্য ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে গিয়ে খুঁজে দেখুন কেউ সেরকম কাজ দিচ্ছে কিনা।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
ডাটা এন্ট্রিঃ
আমার মনে হয় এই কমন কাজটি সম্পর্কে সবাই শুনেছেন। কাউকে যদি আপনি বাড়ি থেকে কাজ করার কথা জিজ্ঞেস করেন তাহলে এই উত্তর পাবেন। বাড়িতে থেকে অনেক মানুষ শুধু ডাটা এন্ট্রির কাজ করে উপার্জন করছে। ডাটা এন্ট্রি কাজ পাবার জন্য কিছু সাইট-
1. Virtual Bee
2. Diondatasolutions
3. Click Worker
অনলাইন টিউটরঃ
অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের কোর্স করার জন্য বিভিন্ন ওয়েবসাইট আছে যেখানে কোর্সের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন রকমের টিচার প্রয়োজন হয়। তাই আপনার যদি কোনো বিষয় সম্পর্কে খুব গভীর জ্ঞান থাকে তাহলে আপনি অনলাইন গৃহশিক্ষক হিসেবে এরকম যেকোনো ওয়েবসাইটে যোগ দিতে পারেন এবং আপনি বাড়িতে বসে ছাত্রদের সাহায্য করতে পারেন। পাশাপাশি নিজেও আয় করতে পারবেন। এ ধরনের বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট রয়েছে। যেমন-
1. Home tutor Bangladesh
2. tutor.com
3. e-Tutor
ওয়েব ডিজাইনারঃ
আপনার যদি কোডিং দক্ষতা থাকে, তাহলে আপনি ওয়েবসাইটের ডিজাইন শিখতে পারেন। বর্তমানে যুগে ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা প্রচুর। আপনি কিছু ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলোতে একাউন্ট তৈরি করে কাজ শুরু করতে পারেন বা আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট শুরু করতে পারেন এবং আপনার নিজের সার্ভিস প্রদান করার জন্য। একটি ভাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে $ 10,000 $ 200 থেকে খরচ পড়ে। সুতরাং আপনি একটি খুব ভাল ডিজাইন কৌশল ও এবং ওয়েবসাইটে রূপান্তর করা শিখতে পারেন এবং অনলাইনে আপনার সার্ভিস প্রভাইড করতে পারবেন।
প্রোডাক্ট রিভিউয়ারঃ
প্রোডাক্ট রিভিউ বিজনেস খুবই সাধারন বিজনেস। শুধু মাত্র কিছু খুব ভালো মানের প্রোডাক্ট নিন আর সেই প্রোডাক্টগুলো সম্পর্কে রিভিউ লিখুন। যদি সম্ভব হয় আপনি যে প্রোডাক্ট ব্যাবহার করেন সেগুলো ব্যাপারে লিখলে ভালো করবেন। কিন্তু অনেক ইন্টারনেট মার্কেটর আছে যারা অন্য ব্লগে অন্য ব্লগের লেখকদের রিভিউ পড়ে নিজে সেই প্রোডাক্টের রিভিউ লিখছেন। তাই শুরুতে আপনিও সেরকম করতে পারেন। অনলাইন শপিং দিন দিন বাড়ছে সেই সাথে প্রোডাক্ট রিভিউ সাইট গুলো ও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। কোন প্রোডাক্ট কিনতে গিয়ে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে মানুষ পণ্য সম্পর্কে রিভিউ পড়তে পছন্দ করে। তাই তাই আপনি শুধু একটি খুব নামমাত্র মূল্যে আপনার ওয়েবসাইট শুরু করতে পারেন এবং পণ্যের জন্য রিভিউ লেখা শুরু করতে পারেন।
সার্ভেঃ
অনলাইনে জরিপ করার জন্য হাজার হাজার ওয়েবসাইট আছে যারা কয়েকটি সার্ভে সম্পন্ন হলে আপনাকে পেমেন্ট করে দেবে। যদিও পেমেন্ট কম দেয় তারপরও কিন্তু এখনও আপনি কয়েকটি সার্ভে দৈনন্দিন পূরণ করে একটি সম্মান জনক আয় করতে পারেন।উল্লেখ্যঃ এই ধরনের ওয়েবসাইটে একটি প্রিমিয়াম সদস্য হয়ে কিছু পরিমাণ চার্জ দিতে হবে এরপর তাদের টাকা পরিশোধ করার পর, আপনি হাই পেমেন্টের সার্ভে পাবেন।
ম্যাগাজিন লেখকঃ
আপনি যদি সত্যিই ভাল লিখে থাকেন, তাহলে আপনি বড় বড় পত্রিকা কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং তাদের আপনি আপনার কলাম দেখাতে পারেন। অনেক পত্রিকা কোম্পানি পেশাদার লেখকদের খুঁজে থাকেন যারা তাদের জন্য লিখতে পারবে।এইসব পত্রিকা আর্টিকেল প্রতি $ 50 থেকে $ 100 থেকে পেমেন্ট করে। সুতরাং আপনি তাদের জন্য লিখে খুব ভাল অর্থ ঘরে বসে উপার্জন করতে পারেন।
ভিডিও ব্লগারঃ
মানুষ কন্টেন্ট পড়ার তুলনায়ন দেখতে বেশি ভালোবাসে। যে কন্টেন্টটি পড়তে ১৫ মিনিট সময় লাগে সেখানে ভিডিওটি শুধু ২ মিনিটের মধ্যে শেষ করে ফেলা যাবে। সুতরাং আপনি আপনার বাড়ি থেকে একটি ভিডিও প্রশিক্ষণ সেকশন শুরু করতে পারেন এবং কিছু দারুণ ব্যাপার শেখান।
প্রোডাক্ট রিসেলারঃ
বাজারে কিছু পণ্য রিসেলার করা যায়। তাই আপনি একটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করতে পারেন এবং অনলাইন ঐ পণ্য বিক্রি করে আয় করতে পারেন। অথবা আপনার বন্ধুরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে অনেক ধরনের পণ্য ক্রয় করে থাকে তাই আপনি একটি রিসেলার এর জন্য একটি ছোট ওয়েবসাইট তৈরি এবং সে ওয়েবসাইট থেকে পণ্য কিনতে আপনি আপনার বন্ধুদের বলতে পারেন।
অনুবাদকঃ
আপনি যদি একাধিক ভাষা জানেন তাহলে এটি একটি খুবই সহজ কাজ। ইন্টারনেটে অনেক মানুষ আছে যারা এক ভাষা থেকে আরেক ভাষায় অনুবাদ করার জন্য মানুষ খুঁজছেন। আপনি একটি সার্ভিস প্রভাইডার প্রদানকারী হিসাবে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আপনার প্রোফাইল তৈরি করতে পারেন পারেন অথবা বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে যান যেখানে মানুষ অনুবাদের জন্য তাদের কাজ পোস্ট করে। নিচের ওয়েবসাইট গুলোতে মানুষ ভিডিও বা টেক্সট আকারে তাদের কন্টেন্ট প্রদান করে । তাদের চাহিদা অনুসারে আপনি অনুবাদ করে দিন।
1. Speak Write
2. Fiverr
3. Gig Bucks
4. e-Typist
5. FDCH
গ্রাফিক ডিজাইনঃ
বর্তমানে অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে ডিজাইনের ব্যাপক চাহিদা। এজন্য আপনাকে মূলত ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটর এর কাজ শিখতে হবে। ফটোশপ দিয়ে লোগো, বাটন, ব্যানার ইত্যাদি কিভাবে তৈরি করতে হয় সেগুলো জানতে হবে। ফটোশপ দিয়ে পিএসডি (PSD) লেআউট ডিজাইনের কাজের প্রচুর চাহিদা। শুধুমাত্র এ দুইটি জিনিসে আপনাকে দক্ষ হতে হবে। তাছাড়া গ্রাফিক্সের কাজ করতে গেলে আপনাকে সৃজনশীল চিন্তা করতে হবে। এমন কিছু চিন্তা করুন যা অন্যদের চাইতে আলাদা, ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইন তৈরির ফলে আপনার চাহিদাও হবে সবার থেকে বেশি। আপনি যদি প্রতিদিন ৩/৪ ঘন্টা করে পরিশ্রম করেন তাহলে ৬ মাসেই প্রফেশনাল পর্যায়ের PSD ডিজাইন করা সম্ভব। তারপরে আপনি বিভিন্ন সুনামধন্য মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন।
আউটসোর্সিং একটি স্মার্ট পেশা। আপনি যদি অনলাইন পেশা আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারেন তাহলে আপনিও সুনামধন্য মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন। আগামীতে আরো ভালো কিছু নিয়ে লেখার আশা ব্যক্ত করে আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। আসসালামু আলাইকুম।

|| Design by Mamunur Rashid ||

Payment
গ্রাফিক ডিজাইন ওয়েব ডিজাইন আউটসোর্সিং এম এস অফিস কম্পিউটার টিপস ফটো এডিটিং
thumbnail

জনপ্রিয় কিছু বিষয়ে ঘরে বসে আউটসোর্সিং করুন

অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে চান? কোথায় এবং কি বিষয় অউটসোর্সিং করবেন তা ভেবে পাচ্ছেন না? আপনি হয়তো জানেন না ইন্টারনেট জগতে কিছু কিছু কাজ যা আপনি বাড়িতে বসে থেকেই করতে পারবেন। আপনি যদি একজন ছাত্র, মা, কর্মচারী, বেকার, গৃহিনী বা কোনো জায়গায় কাজ করেন, কিন্তু আপনার সুবিধার জন্য আপনি বাড়িতে থেকে কাজ করতে চান, তাহলে আমার এই আর্টিকেলটি আপনার অনেক কাজে আসবে। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাকঃ
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
আর্টিকেল লেখাঃ
আপনি যদি লেখা লেখিতে ভালো হন, তাহলে অন্য লোকের জন্য ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ও ওয়েবসাইটের জন্য কনটেন্ট লেখা শুরু করতে পারেন। ইন্টারনেটের সবকিছু কনটেন্টের উপর নির্ভর করে। আপনি ইন্টারনেটে যা কিছু পড়ছেন তার সবকিছুই আপনার আমার মত মানুষই লিখেছেন। বিভিন্ন ওয়েবসাইটে হয়তো কেউ পার্ট টাইম কন্টেন্ট লেখক হিসেবে বা আবার কেউ ফুল-টাইম কন্টেন্ট লেখক হিসেবে কাজ করছেন।
আপনি ভাবছেন কনটেন্ট লেখা অনেক কঠিনতর কাজ?কনটেন্ট লেখা কঠিন কোন কাজ নয়। আমাদের সকলের কিছু না কিছু বিষয়ে দক্ষতা আছে। তাই কোন বিষয়ে কিছু লেখা কোন ব্যাপার নয়। ধরা যাক আপনি অটোমোবাইল এর উপর ব্যাচেলর ডিগ্রি নিয়েছেন, সুতরাং আপনার অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রির ওপর খুব ভাল জ্ঞান আছে আর তাই আপনি অটোমোবাইল এর উপর যে কোন বিষয় সম্পর্কে লিখতে পারেন। আপনি চাইলে ওডেস্ক, ইল্যান্স ও কিছু অন্যান্য ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে গিয়ে খুঁজে দেখুন কেউ সেরকম কাজ দিচ্ছে কিনা।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
ডাটা এন্ট্রিঃ
আমার মনে হয় এই কমন কাজটি সম্পর্কে সবাই শুনেছেন। কাউকে যদি আপনি বাড়ি থেকে কাজ করার কথা জিজ্ঞেস করেন তাহলে এই উত্তর পাবেন। বাড়িতে থেকে অনেক মানুষ শুধু ডাটা এন্ট্রির কাজ করে উপার্জন করছে। ডাটা এন্ট্রি কাজ পাবার জন্য কিছু সাইট-
1. Virtual Bee
2. Diondatasolutions
3. Click Worker
অনলাইন টিউটরঃ
অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের কোর্স করার জন্য বিভিন্ন ওয়েবসাইট আছে যেখানে কোর্সের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন রকমের টিচার প্রয়োজন হয়। তাই আপনার যদি কোনো বিষয় সম্পর্কে খুব গভীর জ্ঞান থাকে তাহলে আপনি অনলাইন গৃহশিক্ষক হিসেবে এরকম যেকোনো ওয়েবসাইটে যোগ দিতে পারেন এবং আপনি বাড়িতে বসে ছাত্রদের সাহায্য করতে পারেন। পাশাপাশি নিজেও আয় করতে পারবেন। এ ধরনের বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট রয়েছে। যেমন-
1. Home tutor Bangladesh
2. tutor.com
3. e-Tutor
ওয়েব ডিজাইনারঃ
আপনার যদি কোডিং দক্ষতা থাকে, তাহলে আপনি ওয়েবসাইটের ডিজাইন শিখতে পারেন। বর্তমানে যুগে ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা প্রচুর। আপনি কিছু ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলোতে একাউন্ট তৈরি করে কাজ শুরু করতে পারেন বা আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট শুরু করতে পারেন এবং আপনার নিজের সার্ভিস প্রদান করার জন্য। একটি ভাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে $ 10,000 $ 200 থেকে খরচ পড়ে। সুতরাং আপনি একটি খুব ভাল ডিজাইন কৌশল ও এবং ওয়েবসাইটে রূপান্তর করা শিখতে পারেন এবং অনলাইনে আপনার সার্ভিস প্রভাইড করতে পারবেন।
প্রোডাক্ট রিভিউয়ারঃ
প্রোডাক্ট রিভিউ বিজনেস খুবই সাধারন বিজনেস। শুধু মাত্র কিছু খুব ভালো মানের প্রোডাক্ট নিন আর সেই প্রোডাক্টগুলো সম্পর্কে রিভিউ লিখুন। যদি সম্ভব হয় আপনি যে প্রোডাক্ট ব্যাবহার করেন সেগুলো ব্যাপারে লিখলে ভালো করবেন। কিন্তু অনেক ইন্টারনেট মার্কেটর আছে যারা অন্য ব্লগে অন্য ব্লগের লেখকদের রিভিউ পড়ে নিজে সেই প্রোডাক্টের রিভিউ লিখছেন। তাই শুরুতে আপনিও সেরকম করতে পারেন। অনলাইন শপিং দিন দিন বাড়ছে সেই সাথে প্রোডাক্ট রিভিউ সাইট গুলো ও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। কোন প্রোডাক্ট কিনতে গিয়ে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে মানুষ পণ্য সম্পর্কে রিভিউ পড়তে পছন্দ করে। তাই তাই আপনি শুধু একটি খুব নামমাত্র মূল্যে আপনার ওয়েবসাইট শুরু করতে পারেন এবং পণ্যের জন্য রিভিউ লেখা শুরু করতে পারেন।
সার্ভেঃ
অনলাইনে জরিপ করার জন্য হাজার হাজার ওয়েবসাইট আছে যারা কয়েকটি সার্ভে সম্পন্ন হলে আপনাকে পেমেন্ট করে দেবে। যদিও পেমেন্ট কম দেয় তারপরও কিন্তু এখনও আপনি কয়েকটি সার্ভে দৈনন্দিন পূরণ করে একটি সম্মান জনক আয় করতে পারেন।উল্লেখ্যঃ এই ধরনের ওয়েবসাইটে একটি প্রিমিয়াম সদস্য হয়ে কিছু পরিমাণ চার্জ দিতে হবে এরপর তাদের টাকা পরিশোধ করার পর, আপনি হাই পেমেন্টের সার্ভে পাবেন।
ম্যাগাজিন লেখকঃ
আপনি যদি সত্যিই ভাল লিখে থাকেন, তাহলে আপনি বড় বড় পত্রিকা কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং তাদের আপনি আপনার কলাম দেখাতে পারেন। অনেক পত্রিকা কোম্পানি পেশাদার লেখকদের খুঁজে থাকেন যারা তাদের জন্য লিখতে পারবে।এইসব পত্রিকা আর্টিকেল প্রতি $ 50 থেকে $ 100 থেকে পেমেন্ট করে। সুতরাং আপনি তাদের জন্য লিখে খুব ভাল অর্থ ঘরে বসে উপার্জন করতে পারেন।
ভিডিও ব্লগারঃ
মানুষ কন্টেন্ট পড়ার তুলনায়ন দেখতে বেশি ভালোবাসে। যে কন্টেন্টটি পড়তে ১৫ মিনিট সময় লাগে সেখানে ভিডিওটি শুধু ২ মিনিটের মধ্যে শেষ করে ফেলা যাবে। সুতরাং আপনি আপনার বাড়ি থেকে একটি ভিডিও প্রশিক্ষণ সেকশন শুরু করতে পারেন এবং কিছু দারুণ ব্যাপার শেখান।
প্রোডাক্ট রিসেলারঃ
বাজারে কিছু পণ্য রিসেলার করা যায়। তাই আপনি একটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করতে পারেন এবং অনলাইন ঐ পণ্য বিক্রি করে আয় করতে পারেন। অথবা আপনার বন্ধুরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে অনেক ধরনের পণ্য ক্রয় করে থাকে তাই আপনি একটি রিসেলার এর জন্য একটি ছোট ওয়েবসাইট তৈরি এবং সে ওয়েবসাইট থেকে পণ্য কিনতে আপনি আপনার বন্ধুদের বলতে পারেন।
অনুবাদকঃ
আপনি যদি একাধিক ভাষা জানেন তাহলে এটি একটি খুবই সহজ কাজ। ইন্টারনেটে অনেক মানুষ আছে যারা এক ভাষা থেকে আরেক ভাষায় অনুবাদ করার জন্য মানুষ খুঁজছেন। আপনি একটি সার্ভিস প্রভাইডার প্রদানকারী হিসাবে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আপনার প্রোফাইল তৈরি করতে পারেন পারেন অথবা বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে যান যেখানে মানুষ অনুবাদের জন্য তাদের কাজ পোস্ট করে। নিচের ওয়েবসাইট গুলোতে মানুষ ভিডিও বা টেক্সট আকারে তাদের কন্টেন্ট প্রদান করে । তাদের চাহিদা অনুসারে আপনি অনুবাদ করে দিন।
1. Speak Write
2. Fiverr
3. Gig Bucks
4. e-Typist
5. FDCH
গ্রাফিক ডিজাইনঃ
বর্তমানে অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে ডিজাইনের ব্যাপক চাহিদা। এজন্য আপনাকে মূলত ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটর এর কাজ শিখতে হবে। ফটোশপ দিয়ে লোগো, বাটন, ব্যানার ইত্যাদি কিভাবে তৈরি করতে হয় সেগুলো জানতে হবে। ফটোশপ দিয়ে পিএসডি (PSD) লেআউট ডিজাইনের কাজের প্রচুর চাহিদা। শুধুমাত্র এ দুইটি জিনিসে আপনাকে দক্ষ হতে হবে। তাছাড়া গ্রাফিক্সের কাজ করতে গেলে আপনাকে সৃজনশীল চিন্তা করতে হবে। এমন কিছু চিন্তা করুন যা অন্যদের চাইতে আলাদা, ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইন তৈরির ফলে আপনার চাহিদাও হবে সবার থেকে বেশি। আপনি যদি প্রতিদিন ৩/৪ ঘন্টা করে পরিশ্রম করেন তাহলে ৬ মাসেই প্রফেশনাল পর্যায়ের PSD ডিজাইন করা সম্ভব। তারপরে আপনি বিভিন্ন সুনামধন্য মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন।
আউটসোর্সিং একটি স্মার্ট পেশা। আপনি যদি অনলাইন পেশা আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারেন তাহলে আপনিও সুনামধন্য মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন। আগামীতে আরো ভালো কিছু নিয়ে লেখার আশা ব্যক্ত করে আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। আসসালামু আলাইকুম।

আপনার মতামত লিখুনঃ