Limited-Time Discount | Enroll today and learn risk-free with our 30-day money-back guarantee.

Login

SIGN UP for FREE

ORDER NOW

Login
thumbnail

পাওয়ার পয়েন্ট অসাধারণ প্রেজেন্টেশন তৈরি করুন

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সফটওয়্যার। এর মাধ্যমে বিভিন্ন টেক্সট, ছবি, আডিও, ভিডিও, গ্রাফিক্যাল এলিমেন্ট দিয়ে আকর্ষনীয় প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়। আজকে আমরা জানবো কিভাবে মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট 2016-এ প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়। চলুন শুরু করা যাক।
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
নতুন প্রেজেন্টেশন তৈরি করার পদ্ধতিঃ
পাওয়ারপয়েন্ট-2016 সংস্কারণে একটি নতুন প্রেজেন্টেশন বিভিন্ন ভাবে তৈরি করা যায়। এর মধ্যে কয়েকটি নিয়ম দেখানো হচ্ছে-
1. হোম বাটনে NEW অপশনে ক্লিক করলে New Presentation ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
2. এরপর ডায়ালগ বক্সের বাঁদিকে Templates লেখার নীচে Blank and recent এর অন্তর্গত Blank Presentation আইকনে ক্লিক করে Create বাটনে ক্লিক কররতে হবে।
3. এর ফলে পাওয়ারপয়েন্ট এর উইন্ডোটি প্রদর্শিত হবে।
4. এই উইন্ডডোটি স্লাইড প্যান-এ Click to add Title এ মাউস ক্লিক করে নির্দিষ্ট টেক্সট লিখতে হবে।
5. এরপর নীচের Click to add Subtitle লেখা প্লাগ হোল্ডারে নির্দিষ্ট টেক্সট লিখতে হবে।
6. এরপর ফাইলটি সেভ করতে হবে।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
টেমপ্লেট-এর সাহায্যে প্রেজেন্টেশন তৈরিঃ
Template হচ্ছে কতকগুলো নমুনা প্রেজেন্টেশনগুলো পাওয়ারপয়েন্টে আগে থেকে তৈরি করা থাকে। এই টেমপ্লেটে ব্যবহৃত স্লাইডগুলোতে বিভিন্ন Background, Theme ডিজাইন সম্বন্ধে সুন্দরভাবে বর্ণনা দেওয়া থাকে। ব্যবহারকারী Template-এর স্লাইডগুলোর সাহায্যে নিজের পছন্দমতো প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারে। টেমপ্লেট ব্যবহার করে প্রেজেন্টেশন তৈরির পদ্ধতি নিচে উল্লেখ করা হলো
1. হোম বাটনে ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকার New অপশনে ক্লিক করলে New Presentation ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
2. এই ডায়ালগ বক্সের Templates লেখার নীচে Installed Templates অপশন ক্লিক করলে পাশের বক্সে বিভিন্ন Templates গুলো (Classic Photo Album, Introducing PowerPoint 2016, Contemporary Photo Album ইত্যাদি) প্রদর্শিত হবে। এখন থাকে পছন্দ অনুযায়ী Template সিলেক্ট করতে হবে।
3. তারপর Create বাটনে ক্লিক করলে সেই Template এর বিভিন্ন স্লাইড সহ নমুনা প্রেজেন্টেশন Open হবে।
4. এরপর ব্যবহারকারী তার নিজের পছন্দ অনুযায়ী Template-এ উপস্থিত স্লাইডগুলো ডিজাইন অনুসরণ করে সুন্দর প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারবে।
প্রেজেন্টেশন সেভ করাঃ
1. হোম বাটনের Save বা Save As.. এ ক্লিক করতে হবে। অথবা কী-বোর্ডের Ctrl+S একসাথে চাপতে হবে।
2. Save As ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে। ডায়ালগ বক্সের নীচের দিকে File Name: টেক্সট বক্সে ফাইলটি যে নামে সেভ হবে সেটি টাইপ করতে হবে। ধরা যাক লেখা হচ্ছে My_ Presentation.
3. এরপর Save বাটনে ক্লিক করতে হবে।
4. হোম বাটনের Open-এ ক্লিক করতে হবে। অথবা কী-বোর্ড থেকে ctrl+O কী দুটি চাপতে হবে।
5. এরপর Open ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
6. Open ডায়ালগ বক্সের File Name: টেক্সট বক্সে সেভ করা ফাইলের নাম লিখে Open বাটনে ক্লিক করতে হবে।
যদি ফাইলের কোনো ড্রাইভের নিদিষ্ট ফোল্ডারে Save থেকে সেক্ষেএে Look in: টেক্সট বক্স এর পাশে ড্রপ ডাউন অ্যারো চিহ্নে ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকা থেকে প্রথমে নির্দিষ্ট ড্রাইভ সিলেকশন ও তারপর সেই ড্রাইভের ফোল্ডার থেকে নির্দিষ্ট ড্রাইভ সিলেকশন ও তারপর সেই ড্রাইভের ফোল্ডার থেকে নির্দিষ্ট ফাইলটি সিলেক্ট করে Open বাটন ক্লিক করতে হবে।
পাওয়ারপয়েন্ট-এ কোনো ফাইল বন্ধ করার পদ্ধতিঃ
1. হোম বাটনে ক্লিক করতে হবে।
2. প্রদর্শিত মেনু তালিকা নীচের দিকে অপশনে ক্লিক করলে পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন ফাইলটি বন্ধ হবে।

অথবা, কী-বোর্ডের Ctrl+F4 কী দুটি একসাথে চাপলে পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশনটি বন্ধ হবে।
পাওয়ারপয়েন্ট অ্যাপ্লিকেশন বন্ধ করার পদ্ধতিঃ
হোম বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর প্রদর্শিত মেনু তালিকার নীচের দিকে Exit-এ ক্লিক করলে পাওয়ারপয়েন্ট অ্যাপ্লিকেশন থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে আসা যায়।
স্লাইড ইনসার্টঃ
1. Home রিবনের Slides কমান্ডগ্রুপের New Slides বাটনটি দুটি মাউস পয়েন্টার আনলে বাটনটি দুটি অংশ বিভক্ত হয়। উপরে বক্স আঁকা অংশে ক্লিক করে সরাসরি একটি স্লাইড প্রেজেন্টেশনে যুক্ত করা যায়।
2. নীচে New Slides লেখার পাশে ড্রপ ডাউন অ্যারো চিহ্নে ক্লিক করলে একটি Slide Layout বক্স প্রদর্শিত হবে (যেমনঃ Title, Title and Content, Section Header, Two Content, Comparison, Title only ইত্যাদি)। এই বক্সের যে স্লাইড লে-আউটে ক্লিক করা হবে সেই Layout টি ইনসার্ট হবে। [sকী-বোর্ড শর্টকাট-Ctrl+M বা Alt+HI]
স্লাইড মুছে ফেলাঃ
1. Outline/slide ট্যাব থেকে অথবা status Bar-এ উপস্থিত slide Shorter View বাটনে ক্লিক করে নির্দিষ্ট স্লাইড সিলেক্ট করতে হবে।
2. এরপর Home রিবনের Slides কমান্ডগ্রুপের Delete বাটনে ক্লিক করতে হবে। [কী-বোর্ড শর্টকাট-Alt+HD]
ফরম্যাটিং টেক্সটঃ
পাওয়ারপয়েন্ট 2016–এর স্লাইডে প্রদর্শিত Title বা Subtitle লেখা বক্সগুলো প্রকৃতপক্ষে একটি টেক্সট বক্স। এই টেক্সট বক্স যে টেক্সট লেখা হয় প্রয়োজনে সেই টেক্সটকে বিভিন্ন ফল্টে পরিবর্তন,আকার বড়ো বা ছোটো করা,বিভিন্ন কমান্ড প্রয়োগ করে (যেমনঃ Bold, Italic, Underline, Shadow, Front Color ইত্যাদি ) টেক্সটগুলোকে সুন্দরভাবে সাজানো যায়। একেই ফরম্যাটিং টেক্সট বলা হয়। পাওয়ারপয়েন্ট 2016 এর Home রিবনের Font এবং Paragraph কমান্ডগ্রুপে বাটনগুলোর সাহায্যে বিভিন্নভাবে টেক্সট ফরম্যাটিং এর কাজ করা যায়। নীচে Font এবং Paragraph কমান্ডগ্রুপে উপস্থিত বাটনগুলোর নাম ও কাজ উল্লেখ করা হয়।
স্লাইড ব্যাকগ্রউন্ডে বিভিন্ন থিম সংযোজনঃ
প্রেজেন্টেশনে একাধিক স্লাইডে আলদা আলদা থিমস যুক্ত করা যায়। নীচে পদ্ধতিটি উল্লেখ করা হচ্ছে –
পদ্ধতিঃ
1. প্রথমে Outline/Slide ট্যাব থেকে নির্দিষ্ট স্লাইড সিলেক্ট করতে হবে।
2. এরপর Design রিবনের Themes কমান্ডগ্রুপের বিভিন্ন প্রি-বিল্ড থিমসগুলো উপর মাউস পয়েন্টার ক্লিক করলে স্লাইডে সেই থিমটি যুক্ত হবে।
Design রিবনের Themes কমান্ডগ্রুপ মত আটটি Default ডিজাইন দেখা যায়। এর মধ্যে যে কোনো Themes –এর উপর মাউস পয়েন্টার আনলে স্লাইডে সেই ডিজাইনটি কেমন Preview দেখাবে তা দেখায়। যদি এই আটটি ডিজাইন থেকে কোনোটি পছন্দ না হয় তবে More পাশে বাটনে ক্লিক করলে [অথবা কী-বোর্ডের Alt+GH কী একসাথে চাপলে] একাধিক এর একটি তালিকা প্রদর্শিত হবে।
স্লাইড ব্যাকগ্রাউন্ডে সলিড ফিল যোগ করাঃ
1. প্রথমে Outline/slide ট্যাব থেকে নির্দিষ্ট স্লাইড সিলেক্ট করতে হবে।
2. এরপর Design রিবনের Background কমান্ডগ্রুপের বাটনের ক্লিক করলে [অথবা কী-বোর্ড Alt+GB]12টি ডিজাইনের একটি বক্স প্রদর্শিত হবে। এখানে যে কোনো Background Design-এ ক্লিক করলে স্লাইডের Background টি সেই ডিজাইনে পরিণত হবে।
যদি এই 12 টি ডিজাইনের কোনোটি পছন্দ না হয় তবে, Background Style বাটনের পাশে ড্রপ ডাউন অ্যারো চিহ্ন ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকা নীচের দিকে Format Background–এ ক্লিক করতে হবে। [অথবা কী-বোর্ডের Alt+GBB একত্রে চাপতে হবে] এর ফলে Format Background ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
1. এই ডায়ালগ বক্সে Solid Fill রেডিও বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর Color: লেখার পাশের বাটনের ড্রপ ডাউন অ্যারোতে ক্লিক করলে একটি রঙের তালিকা প্রদর্শিত হবে।
2. এই রঙের তালিকা থেকে পছন্দের রঙ টিতে ক্লিক করে প্রথমে Apply to All বাটন ও পরে Close বাটনে ক্লিক করে ডায়ালগ বক্সটি বন্ধ করতে হবে।
স্লাইড ব্যাকগ্রাউন্ডের টেক্সচার যোগ করাঃ
1. Format Background ডায়ালগ বক্সে Picture or texture Fill রেডিও বাটনে ক্লিক করতে হবে।
2. এরপর এই ডায়ালগ বক্সের Texture:লেখার পাশের বাটনের ড্রপ ডাউন অ্যারোতে ক্লিক করলে বিভিন্ন টেক্সচারের একটি তালিকা প্রদর্শিত হবে।
3. এই তালিকা থেকে পছন্দের Texture–এ ক্লিক করতে হবে এবং পরে Apply to All বাটনে ক্লিক করে আবার Close বাটনে ক্লিক করে ডায়ালগ বক্সটি বন্ধ করতে হবে।
স্লাইড ব্যাকগ্রাউন্ডে পিকচার যোগ করাঃ
1. Format Background ডায়ালগ বক্সে Picture or Texture Fill রেডিও বাটনে ক্লিক করতে হবে।
2. এরপর এই ডায়ালগ বক্সের Insert From:লেখার নীচে বাটনে ক্লিক করতে হবে। ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
3. এরপর ডায়ালগ বক্স থেকে দুইভাবে পিকচার যক্ত করা হবে। Look in:টেক্সট বক্সের ড্রপ ডাইন অ্যারোতে ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকায় নির্দিষ্ট ড্রাইভ সিলেক্ট করে,অথবা এই ডায়ালগ বক্সের নীচে File Name:টেক্সট বক্সে নির্দিষ্ট ফাইল –এর নাম পাথসহ টাইপ করে তারপর Insert বাটনে ক্লিক করতে হবে। এর ফলে সিলেক্ট করা পিকচারটি স্লাইড বাচজগ্রউন্ড-এ যুক্ত হবে।
4. এরপর Format Background ডায়ালগ বক্সের Apply to All বাটনে ক্লিক করলে প্রেজেন্টেশনের সকল স্লাইডে এই পিকচারটি ব্যাকগ্রাউন্ড হিসাবে যুক্ত হবে,এরপর Close বাটনে ক্লিক করে ডায়ালগ বক্স বন্ধ করতে হবে।
স্লাইডে ক্লিপ আর্ট সংযোজনঃ
স্লাইডে বিভিন্ন ধরনের ক্লিপ আর্ট সংযোজন করে সুন্দর সুন্দর প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়।
পদ্ধতিঃ
1. Insert রিবনের illustrations কমান্ডগ্রুপের Clip Art বাটনে ক্লিক করলে টাঙ্ক প্যানেলে Click Art ডায়ালগ বক্সটি দেখা যাবে।
2. এই ডায়ালগ বক্সের নীচের দিকে Organize clip… লেখায় ক্লিক করলে স্ক্রিন Microsoft Clip Organizer ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
3. এই ডায়ালগ বক্সের Office Collections লেখায় ক্লিক করলে বিভিন্ন বিষয়ের ক্লিপ আর্টগুলো (Academic, Agriculture, Animal, Arts…ইত্যাদি) দেখাবে।
4. এর পর যে বিষয়ের ক্লিপ আর্ট দরকার সেই বিষয়ে ক্লিক করতে হবে। এর ফলে ডায়ালগ বক্সের ডানদিকে সেই বিষয়ের বিভিন্ন ক্লিপ আর্ট প্রদর্শিত হবে।
5. এখানে নিদিষ্ট ক্লিপ আর্টকে সিলেক্ট করে রাইট মাউস বাটনে ক্লিক করলে একটি মেনু আসবে। এই মেনুর Copy তে ক্লিক করে কী-বোর্ড থেকে Ctrl+V কী দুটি একসাথে চাপলে ক্লিপ আর্ট স্লাইডে ইনসার্ট হবে।
Clip Art ইনসার্ট করলে Format নামক একটি রিবন স্ক্রিনে দেখা যায়। এই Format রিবনে Adjust ,Picture Styles, Arrange ,Size এই চারটি কমান্ডগ্রুপ থাকে। এই Format রিবনের সাহায্যে ক্লিপ আর্টের Brightness Contrast, ক্লিপ আর্টের পেছনের সেডিং,Picture Shape, Picture Broder, Picture Effect ,Text Wrapping, Bring to Front, Send to Back এবং Clip Art-এ আকৃতি বড়/ছোটো ইত্যাদি কাজগুলো করা যায়।
টেক্সট ও অবজেক্টের অ্যানিমেশন করাঃ
MS-Power Point –এ স্লাইড অ্যানিমেশন একটি প্রধান বৈশিষ্ট। স্লাইডে উপস্থিত বিভিন্ন টেক্সট ও ছবিতে অ্যানিমেশন ইফেক্ট প্রয়োগ করে স্লাইড শো –এর মাধ্যমে স্লাইডের বিষয়বস্তুকে শ্রোতা ও দর্শকদের কাছে আকর্ষ্ক ও মনোগ্রাহী করে তোলে যায়। এরফলে বক্তা তার বক্তব্যকে সকলের সামনে সহজ ও সরলভাবে ব্যাখা করতে পারে। স্লাইডে অ্যানিমেশনের বিভিন্ন পদ্ধতি নীচে আলোচনা করা হচ্ছে।
1. Animations রিবনে Animations কমান্ডগ্রুপে Custom Animation বাটনে ক্লিক করলে (অথবা, কী-বোর্ডের Alt+AC চাপলে) Task Pane-এ Custom Animation ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
2. এরপর স্লাইডের যে কোনো Text অথবা object সিলেক্ট করতে হবে।
3. Add Effect বাটনে ক্লিক করতে হবে। ক্লিক করার পর Entrance, Emphasis, Exit, Motion Path মোট চারটি অপশনের যক্ত তালিকা দেখা যাবে।
4. এদের প্রত্যেকটি অপশনের উপর মাউস পয়েন্টার আনলে ঐ অপশনের অন্তর্গত বিভিন্ন স্লাইড ইফেক্টগুলো প্রদর্শিত হবে।
5. এখানে নির্দিষ্ট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
6. এর ফলে সিলেক্ট করা Object টি তে উক্ত Animation Effect যক্ত হবে।
প্রিভিউ বাটনঃ স্লাইডে উপস্থিত Text অথবা Object-এ যে ট্রানজেশন ইফেক্ট ,কাস্টম অ্যানিমেশন প্রয়োগ করা হচ্ছে সেটি Slide Show –সময় দেখতে কেমন হবে তা দেখার জন্য এই বাটনে ক্লিক করতে (অথবা কী-বোর্ডের Alt+AP চাপতে )হবে।
স্লাইডে শব্দ যোগ করাঃ
স্লাইডে যে সকল সাউন্ড ফরম্যাট যুক্ত করা যায়,তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে .waw,mp3,midi,mpeg.avi ইত্যাদি। পাওয়ারপয়েন্ট স্লাইডে বিভিন্নভাবে সাউন্ড বা শব্দ যোগ করা যায়। যেমনঃ Disk থেকে,CD Audio Track থেকে ,Clip Organizer থেকে এবং সর্বোপরি Sound Recording এর মাধ্যমে।
পদ্ধতিঃ
1. 1. Insert রিবনের Media Clip কমান্ডগ্রুপের Sound লেখা বাটনে ক্লিক করলে Insert Sound ডায়ালগ বক্স স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে।
2. 2. এবার Disk Drive (C:/D: ইত্যাদি)-এ সংরক্ষিত অডিও ফাইল নির্দিষ্ট ফোল্ডার থেকে নির্বাচন করে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে। এর ফলে নির্দিষ্ট অডিও সাউন্ড স্লাইড সংযোজিত হবে।
আশা করছি আপনাদের টপিকটি খুব ভালো লেগেছে। আপনারা ব্লগগুলো পড়ার পাশাপাশি বেশি বেশি প্র্যাকটিস করবেন। তাহলে আপনারাও ভালো মানের প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারবেন। ব্লগটি পড়ার জন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ, আসসালামু আলাইকুম।

|| Design by Mamunur Rashid ||

Payment
গ্রাফিক ডিজাইন ওয়েব ডিজাইন আউটসোর্সিং এম এস অফিস কম্পিউটার টিপস ফটো এডিটিং
thumbnail

পাওয়ার পয়েন্ট অসাধারণ প্রেজেন্টেশন তৈরি করুন

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সফটওয়্যার। এর মাধ্যমে বিভিন্ন টেক্সট, ছবি, আডিও, ভিডিও, গ্রাফিক্যাল এলিমেন্ট দিয়ে আকর্ষনীয় প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়। আজকে আমরা জানবো কিভাবে মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট 2016-এ প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়। চলুন শুরু করা যাক।
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
নতুন প্রেজেন্টেশন তৈরি করার পদ্ধতিঃ
পাওয়ারপয়েন্ট-2016 সংস্কারণে একটি নতুন প্রেজেন্টেশন বিভিন্ন ভাবে তৈরি করা যায়। এর মধ্যে কয়েকটি নিয়ম দেখানো হচ্ছে-
1. হোম বাটনে NEW অপশনে ক্লিক করলে New Presentation ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
2. এরপর ডায়ালগ বক্সের বাঁদিকে Templates লেখার নীচে Blank and recent এর অন্তর্গত Blank Presentation আইকনে ক্লিক করে Create বাটনে ক্লিক কররতে হবে।
3. এর ফলে পাওয়ারপয়েন্ট এর উইন্ডোটি প্রদর্শিত হবে।
4. এই উইন্ডডোটি স্লাইড প্যান-এ Click to add Title এ মাউস ক্লিক করে নির্দিষ্ট টেক্সট লিখতে হবে।
5. এরপর নীচের Click to add Subtitle লেখা প্লাগ হোল্ডারে নির্দিষ্ট টেক্সট লিখতে হবে।
6. এরপর ফাইলটি সেভ করতে হবে।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
টেমপ্লেট-এর সাহায্যে প্রেজেন্টেশন তৈরিঃ
Template হচ্ছে কতকগুলো নমুনা প্রেজেন্টেশনগুলো পাওয়ারপয়েন্টে আগে থেকে তৈরি করা থাকে। এই টেমপ্লেটে ব্যবহৃত স্লাইডগুলোতে বিভিন্ন Background, Theme ডিজাইন সম্বন্ধে সুন্দরভাবে বর্ণনা দেওয়া থাকে। ব্যবহারকারী Template-এর স্লাইডগুলোর সাহায্যে নিজের পছন্দমতো প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারে। টেমপ্লেট ব্যবহার করে প্রেজেন্টেশন তৈরির পদ্ধতি নিচে উল্লেখ করা হলো
1. হোম বাটনে ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকার New অপশনে ক্লিক করলে New Presentation ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
2. এই ডায়ালগ বক্সের Templates লেখার নীচে Installed Templates অপশন ক্লিক করলে পাশের বক্সে বিভিন্ন Templates গুলো (Classic Photo Album, Introducing PowerPoint 2016, Contemporary Photo Album ইত্যাদি) প্রদর্শিত হবে। এখন থাকে পছন্দ অনুযায়ী Template সিলেক্ট করতে হবে।
3. তারপর Create বাটনে ক্লিক করলে সেই Template এর বিভিন্ন স্লাইড সহ নমুনা প্রেজেন্টেশন Open হবে।
4. এরপর ব্যবহারকারী তার নিজের পছন্দ অনুযায়ী Template-এ উপস্থিত স্লাইডগুলো ডিজাইন অনুসরণ করে সুন্দর প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারবে।
প্রেজেন্টেশন সেভ করাঃ
1. হোম বাটনের Save বা Save As.. এ ক্লিক করতে হবে। অথবা কী-বোর্ডের Ctrl+S একসাথে চাপতে হবে।
2. Save As ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে। ডায়ালগ বক্সের নীচের দিকে File Name: টেক্সট বক্সে ফাইলটি যে নামে সেভ হবে সেটি টাইপ করতে হবে। ধরা যাক লেখা হচ্ছে My_ Presentation.
3. এরপর Save বাটনে ক্লিক করতে হবে।
4. হোম বাটনের Open-এ ক্লিক করতে হবে। অথবা কী-বোর্ড থেকে ctrl+O কী দুটি চাপতে হবে।
5. এরপর Open ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
6. Open ডায়ালগ বক্সের File Name: টেক্সট বক্সে সেভ করা ফাইলের নাম লিখে Open বাটনে ক্লিক করতে হবে।
যদি ফাইলের কোনো ড্রাইভের নিদিষ্ট ফোল্ডারে Save থেকে সেক্ষেএে Look in: টেক্সট বক্স এর পাশে ড্রপ ডাউন অ্যারো চিহ্নে ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকা থেকে প্রথমে নির্দিষ্ট ড্রাইভ সিলেকশন ও তারপর সেই ড্রাইভের ফোল্ডার থেকে নির্দিষ্ট ড্রাইভ সিলেকশন ও তারপর সেই ড্রাইভের ফোল্ডার থেকে নির্দিষ্ট ফাইলটি সিলেক্ট করে Open বাটন ক্লিক করতে হবে।
পাওয়ারপয়েন্ট-এ কোনো ফাইল বন্ধ করার পদ্ধতিঃ
1. হোম বাটনে ক্লিক করতে হবে।
2. প্রদর্শিত মেনু তালিকা নীচের দিকে অপশনে ক্লিক করলে পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন ফাইলটি বন্ধ হবে।

অথবা, কী-বোর্ডের Ctrl+F4 কী দুটি একসাথে চাপলে পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশনটি বন্ধ হবে।
পাওয়ারপয়েন্ট অ্যাপ্লিকেশন বন্ধ করার পদ্ধতিঃ
হোম বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর প্রদর্শিত মেনু তালিকার নীচের দিকে Exit-এ ক্লিক করলে পাওয়ারপয়েন্ট অ্যাপ্লিকেশন থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে আসা যায়।
স্লাইড ইনসার্টঃ
1. Home রিবনের Slides কমান্ডগ্রুপের New Slides বাটনটি দুটি মাউস পয়েন্টার আনলে বাটনটি দুটি অংশ বিভক্ত হয়। উপরে বক্স আঁকা অংশে ক্লিক করে সরাসরি একটি স্লাইড প্রেজেন্টেশনে যুক্ত করা যায়।
2. নীচে New Slides লেখার পাশে ড্রপ ডাউন অ্যারো চিহ্নে ক্লিক করলে একটি Slide Layout বক্স প্রদর্শিত হবে (যেমনঃ Title, Title and Content, Section Header, Two Content, Comparison, Title only ইত্যাদি)। এই বক্সের যে স্লাইড লে-আউটে ক্লিক করা হবে সেই Layout টি ইনসার্ট হবে। [sকী-বোর্ড শর্টকাট-Ctrl+M বা Alt+HI]
স্লাইড মুছে ফেলাঃ
1. Outline/slide ট্যাব থেকে অথবা status Bar-এ উপস্থিত slide Shorter View বাটনে ক্লিক করে নির্দিষ্ট স্লাইড সিলেক্ট করতে হবে।
2. এরপর Home রিবনের Slides কমান্ডগ্রুপের Delete বাটনে ক্লিক করতে হবে। [কী-বোর্ড শর্টকাট-Alt+HD]
ফরম্যাটিং টেক্সটঃ
পাওয়ারপয়েন্ট 2016–এর স্লাইডে প্রদর্শিত Title বা Subtitle লেখা বক্সগুলো প্রকৃতপক্ষে একটি টেক্সট বক্স। এই টেক্সট বক্স যে টেক্সট লেখা হয় প্রয়োজনে সেই টেক্সটকে বিভিন্ন ফল্টে পরিবর্তন,আকার বড়ো বা ছোটো করা,বিভিন্ন কমান্ড প্রয়োগ করে (যেমনঃ Bold, Italic, Underline, Shadow, Front Color ইত্যাদি ) টেক্সটগুলোকে সুন্দরভাবে সাজানো যায়। একেই ফরম্যাটিং টেক্সট বলা হয়। পাওয়ারপয়েন্ট 2016 এর Home রিবনের Font এবং Paragraph কমান্ডগ্রুপে বাটনগুলোর সাহায্যে বিভিন্নভাবে টেক্সট ফরম্যাটিং এর কাজ করা যায়। নীচে Font এবং Paragraph কমান্ডগ্রুপে উপস্থিত বাটনগুলোর নাম ও কাজ উল্লেখ করা হয়।
স্লাইড ব্যাকগ্রউন্ডে বিভিন্ন থিম সংযোজনঃ
প্রেজেন্টেশনে একাধিক স্লাইডে আলদা আলদা থিমস যুক্ত করা যায়। নীচে পদ্ধতিটি উল্লেখ করা হচ্ছে –
পদ্ধতিঃ
1. প্রথমে Outline/Slide ট্যাব থেকে নির্দিষ্ট স্লাইড সিলেক্ট করতে হবে।
2. এরপর Design রিবনের Themes কমান্ডগ্রুপের বিভিন্ন প্রি-বিল্ড থিমসগুলো উপর মাউস পয়েন্টার ক্লিক করলে স্লাইডে সেই থিমটি যুক্ত হবে।
Design রিবনের Themes কমান্ডগ্রুপ মত আটটি Default ডিজাইন দেখা যায়। এর মধ্যে যে কোনো Themes –এর উপর মাউস পয়েন্টার আনলে স্লাইডে সেই ডিজাইনটি কেমন Preview দেখাবে তা দেখায়। যদি এই আটটি ডিজাইন থেকে কোনোটি পছন্দ না হয় তবে More পাশে বাটনে ক্লিক করলে [অথবা কী-বোর্ডের Alt+GH কী একসাথে চাপলে] একাধিক এর একটি তালিকা প্রদর্শিত হবে।
স্লাইড ব্যাকগ্রাউন্ডে সলিড ফিল যোগ করাঃ
1. প্রথমে Outline/slide ট্যাব থেকে নির্দিষ্ট স্লাইড সিলেক্ট করতে হবে।
2. এরপর Design রিবনের Background কমান্ডগ্রুপের বাটনের ক্লিক করলে [অথবা কী-বোর্ড Alt+GB]12টি ডিজাইনের একটি বক্স প্রদর্শিত হবে। এখানে যে কোনো Background Design-এ ক্লিক করলে স্লাইডের Background টি সেই ডিজাইনে পরিণত হবে।
যদি এই 12 টি ডিজাইনের কোনোটি পছন্দ না হয় তবে, Background Style বাটনের পাশে ড্রপ ডাউন অ্যারো চিহ্ন ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকা নীচের দিকে Format Background–এ ক্লিক করতে হবে। [অথবা কী-বোর্ডের Alt+GBB একত্রে চাপতে হবে] এর ফলে Format Background ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
1. এই ডায়ালগ বক্সে Solid Fill রেডিও বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর Color: লেখার পাশের বাটনের ড্রপ ডাউন অ্যারোতে ক্লিক করলে একটি রঙের তালিকা প্রদর্শিত হবে।
2. এই রঙের তালিকা থেকে পছন্দের রঙ টিতে ক্লিক করে প্রথমে Apply to All বাটন ও পরে Close বাটনে ক্লিক করে ডায়ালগ বক্সটি বন্ধ করতে হবে।
স্লাইড ব্যাকগ্রাউন্ডের টেক্সচার যোগ করাঃ
1. Format Background ডায়ালগ বক্সে Picture or texture Fill রেডিও বাটনে ক্লিক করতে হবে।
2. এরপর এই ডায়ালগ বক্সের Texture:লেখার পাশের বাটনের ড্রপ ডাউন অ্যারোতে ক্লিক করলে বিভিন্ন টেক্সচারের একটি তালিকা প্রদর্শিত হবে।
3. এই তালিকা থেকে পছন্দের Texture–এ ক্লিক করতে হবে এবং পরে Apply to All বাটনে ক্লিক করে আবার Close বাটনে ক্লিক করে ডায়ালগ বক্সটি বন্ধ করতে হবে।
স্লাইড ব্যাকগ্রাউন্ডে পিকচার যোগ করাঃ
1. Format Background ডায়ালগ বক্সে Picture or Texture Fill রেডিও বাটনে ক্লিক করতে হবে।
2. এরপর এই ডায়ালগ বক্সের Insert From:লেখার নীচে বাটনে ক্লিক করতে হবে। ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
3. এরপর ডায়ালগ বক্স থেকে দুইভাবে পিকচার যক্ত করা হবে। Look in:টেক্সট বক্সের ড্রপ ডাইন অ্যারোতে ক্লিক করে প্রাপ্ত তালিকায় নির্দিষ্ট ড্রাইভ সিলেক্ট করে,অথবা এই ডায়ালগ বক্সের নীচে File Name:টেক্সট বক্সে নির্দিষ্ট ফাইল –এর নাম পাথসহ টাইপ করে তারপর Insert বাটনে ক্লিক করতে হবে। এর ফলে সিলেক্ট করা পিকচারটি স্লাইড বাচজগ্রউন্ড-এ যুক্ত হবে।
4. এরপর Format Background ডায়ালগ বক্সের Apply to All বাটনে ক্লিক করলে প্রেজেন্টেশনের সকল স্লাইডে এই পিকচারটি ব্যাকগ্রাউন্ড হিসাবে যুক্ত হবে,এরপর Close বাটনে ক্লিক করে ডায়ালগ বক্স বন্ধ করতে হবে।
স্লাইডে ক্লিপ আর্ট সংযোজনঃ
স্লাইডে বিভিন্ন ধরনের ক্লিপ আর্ট সংযোজন করে সুন্দর সুন্দর প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়।
পদ্ধতিঃ
1. Insert রিবনের illustrations কমান্ডগ্রুপের Clip Art বাটনে ক্লিক করলে টাঙ্ক প্যানেলে Click Art ডায়ালগ বক্সটি দেখা যাবে।
2. এই ডায়ালগ বক্সের নীচের দিকে Organize clip… লেখায় ক্লিক করলে স্ক্রিন Microsoft Clip Organizer ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
3. এই ডায়ালগ বক্সের Office Collections লেখায় ক্লিক করলে বিভিন্ন বিষয়ের ক্লিপ আর্টগুলো (Academic, Agriculture, Animal, Arts…ইত্যাদি) দেখাবে।
4. এর পর যে বিষয়ের ক্লিপ আর্ট দরকার সেই বিষয়ে ক্লিক করতে হবে। এর ফলে ডায়ালগ বক্সের ডানদিকে সেই বিষয়ের বিভিন্ন ক্লিপ আর্ট প্রদর্শিত হবে।
5. এখানে নিদিষ্ট ক্লিপ আর্টকে সিলেক্ট করে রাইট মাউস বাটনে ক্লিক করলে একটি মেনু আসবে। এই মেনুর Copy তে ক্লিক করে কী-বোর্ড থেকে Ctrl+V কী দুটি একসাথে চাপলে ক্লিপ আর্ট স্লাইডে ইনসার্ট হবে।
Clip Art ইনসার্ট করলে Format নামক একটি রিবন স্ক্রিনে দেখা যায়। এই Format রিবনে Adjust ,Picture Styles, Arrange ,Size এই চারটি কমান্ডগ্রুপ থাকে। এই Format রিবনের সাহায্যে ক্লিপ আর্টের Brightness Contrast, ক্লিপ আর্টের পেছনের সেডিং,Picture Shape, Picture Broder, Picture Effect ,Text Wrapping, Bring to Front, Send to Back এবং Clip Art-এ আকৃতি বড়/ছোটো ইত্যাদি কাজগুলো করা যায়।
টেক্সট ও অবজেক্টের অ্যানিমেশন করাঃ
MS-Power Point –এ স্লাইড অ্যানিমেশন একটি প্রধান বৈশিষ্ট। স্লাইডে উপস্থিত বিভিন্ন টেক্সট ও ছবিতে অ্যানিমেশন ইফেক্ট প্রয়োগ করে স্লাইড শো –এর মাধ্যমে স্লাইডের বিষয়বস্তুকে শ্রোতা ও দর্শকদের কাছে আকর্ষ্ক ও মনোগ্রাহী করে তোলে যায়। এরফলে বক্তা তার বক্তব্যকে সকলের সামনে সহজ ও সরলভাবে ব্যাখা করতে পারে। স্লাইডে অ্যানিমেশনের বিভিন্ন পদ্ধতি নীচে আলোচনা করা হচ্ছে।
1. Animations রিবনে Animations কমান্ডগ্রুপে Custom Animation বাটনে ক্লিক করলে (অথবা, কী-বোর্ডের Alt+AC চাপলে) Task Pane-এ Custom Animation ডায়ালগ বক্স প্রদর্শিত হবে।
2. এরপর স্লাইডের যে কোনো Text অথবা object সিলেক্ট করতে হবে।
3. Add Effect বাটনে ক্লিক করতে হবে। ক্লিক করার পর Entrance, Emphasis, Exit, Motion Path মোট চারটি অপশনের যক্ত তালিকা দেখা যাবে।
4. এদের প্রত্যেকটি অপশনের উপর মাউস পয়েন্টার আনলে ঐ অপশনের অন্তর্গত বিভিন্ন স্লাইড ইফেক্টগুলো প্রদর্শিত হবে।
5. এখানে নির্দিষ্ট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
6. এর ফলে সিলেক্ট করা Object টি তে উক্ত Animation Effect যক্ত হবে।
প্রিভিউ বাটনঃ স্লাইডে উপস্থিত Text অথবা Object-এ যে ট্রানজেশন ইফেক্ট ,কাস্টম অ্যানিমেশন প্রয়োগ করা হচ্ছে সেটি Slide Show –সময় দেখতে কেমন হবে তা দেখার জন্য এই বাটনে ক্লিক করতে (অথবা কী-বোর্ডের Alt+AP চাপতে )হবে।
স্লাইডে শব্দ যোগ করাঃ
স্লাইডে যে সকল সাউন্ড ফরম্যাট যুক্ত করা যায়,তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে .waw,mp3,midi,mpeg.avi ইত্যাদি। পাওয়ারপয়েন্ট স্লাইডে বিভিন্নভাবে সাউন্ড বা শব্দ যোগ করা যায়। যেমনঃ Disk থেকে,CD Audio Track থেকে ,Clip Organizer থেকে এবং সর্বোপরি Sound Recording এর মাধ্যমে।
পদ্ধতিঃ
1. 1. Insert রিবনের Media Clip কমান্ডগ্রুপের Sound লেখা বাটনে ক্লিক করলে Insert Sound ডায়ালগ বক্স স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে।
2. 2. এবার Disk Drive (C:/D: ইত্যাদি)-এ সংরক্ষিত অডিও ফাইল নির্দিষ্ট ফোল্ডার থেকে নির্বাচন করে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে। এর ফলে নির্দিষ্ট অডিও সাউন্ড স্লাইড সংযোজিত হবে।
আশা করছি আপনাদের টপিকটি খুব ভালো লেগেছে। আপনারা ব্লগগুলো পড়ার পাশাপাশি বেশি বেশি প্র্যাকটিস করবেন। তাহলে আপনারাও ভালো মানের প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারবেন। ব্লগটি পড়ার জন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ, আসসালামু আলাইকুম।

আপনার মতামত লিখুনঃ