Limited-Time Discount | Enroll today and learn risk-free with our 30-day money-back guarantee.

Login

SIGN UP for FREE

ORDER NOW

Login
thumbnail

ফটোশপের লেয়ার সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

লেয়ার নিঃসন্দেহে ফটোশপের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ। লেয়ার ছাড়া ফটোশপের তেমন কোন কাজ যেমন করা যায় না, আর করাটাও হবে বোকামি। লেয়ারের গুরুত্ব এতটাই যে, ফটোশপে এর জন্য একটা আলাদা প্যানেল রয়েছে। ফটোশপে স্ক্রীন-এর উপরের দিকে মেনু বারে আছে লেয়ার প্যানেল, আর সেখানে লেয়ার ক্যাটাগরি রয়েছে।
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
এখন কথা হচ্ছে,লেয়ার দিয়ে আমরা কি করতে পারি? কাজের সময় আমরা লেয়ার যোগ করতে পারি, বাদ দিতে পারি, সেই সাথে লেয়ারের নাম দিতে পারি, নাম পরিবর্তন করতে পারি, লেয়ারকে উপরে উঠাতে পারি, নিচে নামাতে পারি, বিভিন্ন লেয়ারকে একসাথে মিক্স করতে পারি, লেয়ারগুলোকে দেখাতে পারি, আবার লুকিয়েও রাখার সাথে সাথে আরো অনেক কিছু করা যায়।
আসলে এভাবে লেয়ারের কাজ শেখার চেষ্টা করা বৃথা।
তবে লেয়ার সম্পর্কে জানার আগে ফটোশপে লেয়ার না থাকলে আমাদের কাজগুলো কেমন হত বা আমাদের কি কি ঝামেলা হত, সেটা জেনে নেয়া যাক। আমরা একেবারে নতুন ডকুমেন্ট ওপেন করা থেকে শুরু করব। আমি CS6 ব্যবহার করছি। তবে অন্যান্য নতুন ভার্সন দিয়েও ঠিক একইভাবে কাজ করা যাবে। প্রথমেই স্ক্রীন-এর উপরে মেনু বার-এ গিয়ে ফাইল অপশনটি সিলেক্ট করব। তারপর NEW অপশনটি সিলেক্ট করব
নতুন একটি ডকুমেন্ট ডায়ালগ বক্স আসবে আমাদের সামনে। এখন এই বক্সের বিভিন্ন ঘরগুলো পূরণ করে আমরা ঠিক করব আমরা যে আয়তাকার বক্সদুটি বানাতে যাচ্ছি সেগুলোর মাপ কি হবে অর্থাৎ বক্সগুলো প্রস্থে-উচ্চতায় কতটুকু হবে। নিজের ইচ্ছা মতো প্রস্থ (Width) আর উচ্চতা (Height) আর Resolution 72 pixels/inch নিতে পারেন। তবে Background contents হবে অবশ্যই সাদা হয়।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
এখন ok চাপতে হবে। তারপরে স্ক্রীন-এ দেখা যাবে সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড-এর নতুন একটি ডকুমেন্ট-
এবার আপনারা এই সাদা স্ক্রীন-এ ইচ্ছেমত কিছু ডিজাইন করে ফেলুন। যেহেতু আমরা শুধুমাত্র লেয়ার সম্পর্কে শিখতেই কাজটা করব তাই কঠিন কিছু ডিজাইন করার কোন প্রয়োজন নেই। স্ক্রীন-এর বাম পাশের ‘টুল প্যানেল’ থেকে Rectangular Marquee Tool (২নং টুল) সিলেক্ট করে নিই।
এবার সাদা স্ক্রীন-এর যেকোনো এক জায়গায় ক্লিক করি এবং টেনে একটি আয়তাকার বক্স আঁকুন।
এখন এই বক্সটিতে আমরা রং করব। রং করার জন্য স্ক্রীন-এর উপরের EDIT মেনুতে গিয়ে Fill অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে।
তারপরে স্ক্রীনে একটি Fill Dialog Box আসবে। বক্সের Use অপশন-এ Color সিলেক্ট করতে হবে।
Color সিলেক্ট করার সাথে সাথেই আমাদের সামনে একটি রং-এর বক্স চলে আসবে, যেখান থেকে আমরা বেছে নিতে পারব পছন্দ মত যেকোনো রং।
রং নির্বাচন করা হয়ে গেলে OK চাপতে হবে, তারপরে রং সিলেকশনের বক্সটি সামনে থেকে অদৃশ্য হয়ে যাবে। এবার Fill dialog box-এ OK চাপতে হবে। আয়তাকার বক্সটিতে আমাদের পছন্দ করা রং চলে আসবে।
বক্সের বাহিরের আউটলাইনটি এখন আর আমাদের দরকার নেই। আউটলাইনটি ডিলেট করতে স্ক্রীন-এর উপরের Select মেনুতে গিয়ে Deselect অপশনটি নির্বাচন করুন
আমাদের প্রথম বক্সের কাজ শেষ। এবার দ্বিতীয় বক্সের পালা। কাজ সব আগের মতই। যেহেতু আগে থেকেই আমাদের Rectangular Marquee Tool সিলেক্ট করা আছে তাই আগের বক্সটির উপরে যেকোনো এক পাশে ক্লিক করে টেনে আরেকটি আয়তাকার বক্স এঁকে ফেলা যাক।
আঁকা হয়ে যাওয়ার পরে রং করার পালা। তাহলে চলুন জেনে নিই?
Edit মেনুতে গিয়ে Fill সিলেক্ট করতে হবে। যদিও Use অপশনের পাশে আগে থেকেই Color সিলেক্ট করা আছে, কিন্তু আমরা যদি এখন OK চাপি তবে আমাদের নতুন আঁকা বক্সটিও আগে থেকে সিলেক্ট করা রং-এ ভরে যাবে যেটা আমরা চাচ্ছি না। তাই Use অপশনের পাশের Color লেখাটির উপর ক্লিক করে আবারো Color সিলেক্ট করি। রং-এর বক্স চলে এল। পছন্দমত আবার রং বেছে নিই। এবার অন্য একটি রং নিতে হবে
OK-তে ক্লিক করতে হবে। তারপরে Fill dialog box-এ ও OK চাপতে হবে। নতুন বক্সটিও রঙে পূর্ণ হয়ে যাবে। এবার আউটলাইন ডিলিট করে ফেলুন। আগের মতই Select মেনু >Deselect অপশন। হয়ে গেল দুই রং-এর দুটি আয়তাকার বক্স-কাজ শেষ।
আসুন এবার কথা বলি আমাদের মুল পয়েন্ট লেয়ার প্যানেল নিয়ে (স্ক্রীন-র ডান পাশে নিচে)। দেখা যাচ্ছে,শুধুমাত্র একটা লেয়ার-এর উপর দুটি বক্স,সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড-সবকিছু ।
তারমানে এই ছোট কাজটুকুর জন্য হয় আমাদের Undo করতে করতে ঐ পর্যন্ত যাওয়া লাগবে,নতুবা সব আবার প্রথম থেকে করা লাগবে।
কাজ শুরুর আগে প্রথমেই ডকুমেন্ট টি সাদা রং সিলেক্ট করে নিবো। যেন আগের বক্স দুইটি ঢেকে যায়। এজন্য স্ক্রীন-এর উপরের Edit মেনুতে গিয়ে Fill সিলেক্ট করতে হবে। Fill Dialog Box-টি আসলে Use অপশন-এর Color কে White-এ পরিবর্তন করতে হবে।
OK অপশনে ক্লিক করতে হবে। তারপরে আপনি দেখতে পাবেন ডকুমেন্ট টি সাদা হয়ে গেছে। এবার আমরা যেখান থেকে শুরু করেছিলাম আবার সেখানেই ফিরে যাই।
যেহেতু এবার আমর লেয়ার ব্যবহার করবো, তাই চলুন প্রথমেই একবার দেখে নেয়া যাক লেয়ার প্যানেল-এ কি কি রয়েছে (স্ক্রীন-র ডান পাশে নিচে)। আপনি দেখতে পারবেন, এই মুহূর্তে আমাদের ডকুমেন্ট এ শুধু একটিমাত্র লেয়ার রয়েছে যেটাকে আমরা বলব ব্যাকগ্রাউন্ড। লেয়ার নামের পাশের ছোট চারকোনা বক্স থেকে আমরা জানতে পারব যে, কোন লেয়ারে কি আছে। যেহেতু এই মুহূর্তে আমাদের লেয়ারটি সম্পূর্ণ সাদা, তাই লেয়ারের নামের পাশের বক্সটিও সাদা হয়ে আছে।
এবারে কাজ শুরু করা যাক। সাদা ব্যাকগ্রাউন্ডটিই হল আমাদের ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ার। এখন প্রথম আয়তাকার বক্সটি আঁকার জন্য আমাদের নতুন একটি লেয়ার যোগ করতে হবে। নতুন লেয়ার যোগ করার জন্য লেয়ার প্যানেল থেকে New Layer আইকনটিতে ক্লিক করতে হবে (প্যানেলের নিচের ডান পাশ থেকে ২ নং)
লেয়ার প্যানেলে দেখুন ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ারের উপর একটি নতুন লেয়ার দেখা যাচ্ছে। ফটোশপ থেকে এর অটোমেটিক নাম হয়েছে Layer 1. লেয়ারের নামের পাশের দাগ কাটা ঘর দিয়ে বোঝানো হচ্ছে এই লেয়ারটি ফাঁকা। নতুন লেয়ারটিকে হাইলাইট করে দেখান হয়েছে যা থেকে বোঝা যায় এই লেয়ারটি এখন কার্যকর আছে। অর্থাৎ আমরা এখানে যে যে ডিজাইন করবো তা Layer 1-এ যোগ হবে।
এবারে এই নতুন লেয়ারে আমাদের প্রথম আয়তাকার বক্সটি যোগ করবো। আগের মতই প্রথমে টুল প্যানেল থেকে Rectangular Marquee Tool সিলেক্ট করে সাদা ডকুমেন্টের যে কোন এক জায়গায় ক্লিক করে ও টেনে একটি আয়তাকার বক্স এঁকে নিবেন।
রং সিলেক্ট করার জন্য আগের মতই স্ক্রীন-এর উপরের Edit মেনুতে গিয়ে Fill সিলেক্ট করতে হবে। Fill Dialog Box টি আসলে Use অপশনটিকে Color–এ পরিবর্তন করে এবং Ok অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে। রং-এর বক্স থেকে রং সিলেক্ট করা হয়ে গেলে আবার Ok অপশনে ক্লিক করতে হবে। ধরুন এবারো আগের মতই লাল রং নির্বাচন করলাম। বক্সটিতে রং আসলে আউটলাইন ডিলিট করার জন্য উপরের Select মেনু থেকে Deselect অপশন টি সিলেক্ট করতে হবে। প্রথম বক্সের কাজ শেষ।
এই মুহূর্তে আমাদের লেয়ার পানেল-র কি অবস্থা চলুন আরেকবার দেখে নেয়া যাক। ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ারটি আগের মতই সাদা কিন্তু Layer 1-এর পাশের ঘরটি লাল রং হয়ে গেছে এবং দুটি লেয়ার পরস্পর থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে গেছে।
এবার আমরা আমাদের দ্বিতীয় বক্সটি আঁকবো। দ্বিতীয় বক্সটির জন্যও নতুন আরেকটা লেয়ার দরকার। আগের মত লেয়ার-প্যানেলে New Layer আইকনটি সিলেক্ট করলেই একটি লেয়ার চলে আসবে।
লেয়ার প্যানেলে Layer 1-এর উপরে Layer 2 নামে নতুন আরেকটি ফাঁকা লেয়ার দেখা যাবে।
এবার Layer 2-এর সাহায্যে নতুন আরেকটি বক্স এঁকে নিই, যেন নতুন বক্সটি লাল বক্সটির উপর কিছুটা উঠে থাকে। রং সিলেক্ট করার জন্য আগের মতই উপরের Edit মেনু থেকে Fill সিলেক্ট করতে হবে। তারপর Use অপশনে Color পুনরায় নির্বাচন করে নিতে হবে। তার পরে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে। রং-এর বক্স থেকে আগের মতই সবুজ রং সিলেক্ট করে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে। আউটলাইন ডিলিট করার জন্য আগের মতো উপরের Select মেনু থেকে Deselect অপশন নির্বাচন করতে হবে। এবার আপনি পেয়ে যাবেন ভিন্ন রবগ-এর দুটি বক্স।
লেয়ার প্যানেলের দিকে তাকালে দেখতে পারবেন, সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড, লাল বক্স এবং সবুজ বক্স আলাদা আলাদা তিনটি লেয়ারে রয়েছে।
সবুজ বক্সটি ও লাল বক্সটির উপর উঠে আসে কেননা লেয়ার প্যানেলে সবুজ বক্সের লেয়ার (Layer 2)-টি লাল বক্সের লেয়ারের (Layer 1) উপরে রয়েছে। বিষয়টি ভালভাবে বোঝার জন্য লেয়ার প্যানেলের নিচ থেকে উপর দিকে আরেকবার দেখুন। প্রথমেই রয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ার, তার উপরে লাল বক্সের লেয়ার এবং তার উপরে সবুজ বক্সের লেয়ার। এবার আপনার ডিজাইনের দিকে লক্ষ্য করুন। প্রথমে সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড, তারপর লাল বক্স এবং তার উপরে সবুজ বক্স দেখতে পাবেন।
এখন আপনি ইচ্ছা করলে খুব সহজেই সবুজ বক্সটির উপর লাল বক্সটিকে তুলে দিতে পারি। এজন্য শুধুমাত্র লেয়ার প্যানেলে লাল বক্সের লেয়ারটিকে সবুজ বক্সের লেয়ারের উপর তুলে দিতে হবে। খুবই সহজ কাজ। লাল বক্সের লেয়ার অর্থাৎ Layer 1-এ ক্লিক করতে হবে
মাউসের বাটনের উপর থেকে আঙ্গুলের চাপ না সরিয়ে Layer 1-কে সোজা উপরে টেনে Layer 2-এর উপর বসাতে হবে। লেয়ারটিকে হাইলাইট করে দেখানোর আগ পর্যন্ত মাউসের উপর থেকে আঙ্গুলের চাপ সরানো যাবে না। লেয়ারটিকে হাইলাইট করে দেখানোর পর মাউসের উপর থেকে হাত সরিয়ে নিন।
লেয়ার প্যানেলে এখন Layer 2-এর উপর Layer 1 অবস্থান করছে এবং ডকুমেন্ট-এ ও সবুজ বক্সের উপর লাল বক্সকে দেখা যাচ্ছে।
দেখা যাচ্ছে, লেয়ারের সাহায্যেই আমরা আমাদের পছন্দ মত পরিবর্তনটুকু খুব সহজেই করতে পারলাম।এভাবেই আপনি লেয়ার ব্যবহার করে অনেক ভালো ধরেন কাজ খুব সহজেই করতে পারবেন। আশা করি আমার লেখা আপনাদের সবার ভালো লাগবে। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি, আসসালামুআলাইকুম।

|| Design by Mamunur Rashid ||

Payment
গ্রাফিক ডিজাইন ওয়েব ডিজাইন আউটসোর্সিং এম এস অফিস কম্পিউটার টিপস ফটো এডিটিং
thumbnail

ফটোশপের লেয়ার সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

লেয়ার নিঃসন্দেহে ফটোশপের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ। লেয়ার ছাড়া ফটোশপের তেমন কোন কাজ যেমন করা যায় না, আর করাটাও হবে বোকামি। লেয়ারের গুরুত্ব এতটাই যে, ফটোশপে এর জন্য একটা আলাদা প্যানেল রয়েছে। ফটোশপে স্ক্রীন-এর উপরের দিকে মেনু বারে আছে লেয়ার প্যানেল, আর সেখানে লেয়ার ক্যাটাগরি রয়েছে।
ঘরে বসে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়ুন

ই-লার্ন বাংলাদেশ এর ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স করুন

বিভিন্ন বিষয় শিখতে এখন আর ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে ঘরে বসেই শিখুন বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল মানের কাজ।

বিস্তারিত পড়ুন
এখন কথা হচ্ছে,লেয়ার দিয়ে আমরা কি করতে পারি? কাজের সময় আমরা লেয়ার যোগ করতে পারি, বাদ দিতে পারি, সেই সাথে লেয়ারের নাম দিতে পারি, নাম পরিবর্তন করতে পারি, লেয়ারকে উপরে উঠাতে পারি, নিচে নামাতে পারি, বিভিন্ন লেয়ারকে একসাথে মিক্স করতে পারি, লেয়ারগুলোকে দেখাতে পারি, আবার লুকিয়েও রাখার সাথে সাথে আরো অনেক কিছু করা যায়।
আসলে এভাবে লেয়ারের কাজ শেখার চেষ্টা করা বৃথা।
তবে লেয়ার সম্পর্কে জানার আগে ফটোশপে লেয়ার না থাকলে আমাদের কাজগুলো কেমন হত বা আমাদের কি কি ঝামেলা হত, সেটা জেনে নেয়া যাক। আমরা একেবারে নতুন ডকুমেন্ট ওপেন করা থেকে শুরু করব। আমি CS6 ব্যবহার করছি। তবে অন্যান্য নতুন ভার্সন দিয়েও ঠিক একইভাবে কাজ করা যাবে। প্রথমেই স্ক্রীন-এর উপরে মেনু বার-এ গিয়ে ফাইল অপশনটি সিলেক্ট করব। তারপর NEW অপশনটি সিলেক্ট করব
নতুন একটি ডকুমেন্ট ডায়ালগ বক্স আসবে আমাদের সামনে। এখন এই বক্সের বিভিন্ন ঘরগুলো পূরণ করে আমরা ঠিক করব আমরা যে আয়তাকার বক্সদুটি বানাতে যাচ্ছি সেগুলোর মাপ কি হবে অর্থাৎ বক্সগুলো প্রস্থে-উচ্চতায় কতটুকু হবে। নিজের ইচ্ছা মতো প্রস্থ (Width) আর উচ্চতা (Height) আর Resolution 72 pixels/inch নিতে পারেন। তবে Background contents হবে অবশ্যই সাদা হয়।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে ভিডিও টি দেখুন

আরও ভিডিও
বিজ্ঞাপন
এখন ok চাপতে হবে। তারপরে স্ক্রীন-এ দেখা যাবে সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড-এর নতুন একটি ডকুমেন্ট-
এবার আপনারা এই সাদা স্ক্রীন-এ ইচ্ছেমত কিছু ডিজাইন করে ফেলুন। যেহেতু আমরা শুধুমাত্র লেয়ার সম্পর্কে শিখতেই কাজটা করব তাই কঠিন কিছু ডিজাইন করার কোন প্রয়োজন নেই। স্ক্রীন-এর বাম পাশের ‘টুল প্যানেল’ থেকে Rectangular Marquee Tool (২নং টুল) সিলেক্ট করে নিই।
এবার সাদা স্ক্রীন-এর যেকোনো এক জায়গায় ক্লিক করি এবং টেনে একটি আয়তাকার বক্স আঁকুন।
এখন এই বক্সটিতে আমরা রং করব। রং করার জন্য স্ক্রীন-এর উপরের EDIT মেনুতে গিয়ে Fill অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে।
তারপরে স্ক্রীনে একটি Fill Dialog Box আসবে। বক্সের Use অপশন-এ Color সিলেক্ট করতে হবে।
Color সিলেক্ট করার সাথে সাথেই আমাদের সামনে একটি রং-এর বক্স চলে আসবে, যেখান থেকে আমরা বেছে নিতে পারব পছন্দ মত যেকোনো রং।
রং নির্বাচন করা হয়ে গেলে OK চাপতে হবে, তারপরে রং সিলেকশনের বক্সটি সামনে থেকে অদৃশ্য হয়ে যাবে। এবার Fill dialog box-এ OK চাপতে হবে। আয়তাকার বক্সটিতে আমাদের পছন্দ করা রং চলে আসবে।
বক্সের বাহিরের আউটলাইনটি এখন আর আমাদের দরকার নেই। আউটলাইনটি ডিলেট করতে স্ক্রীন-এর উপরের Select মেনুতে গিয়ে Deselect অপশনটি নির্বাচন করুন
আমাদের প্রথম বক্সের কাজ শেষ। এবার দ্বিতীয় বক্সের পালা। কাজ সব আগের মতই। যেহেতু আগে থেকেই আমাদের Rectangular Marquee Tool সিলেক্ট করা আছে তাই আগের বক্সটির উপরে যেকোনো এক পাশে ক্লিক করে টেনে আরেকটি আয়তাকার বক্স এঁকে ফেলা যাক।
আঁকা হয়ে যাওয়ার পরে রং করার পালা। তাহলে চলুন জেনে নিই?
Edit মেনুতে গিয়ে Fill সিলেক্ট করতে হবে। যদিও Use অপশনের পাশে আগে থেকেই Color সিলেক্ট করা আছে, কিন্তু আমরা যদি এখন OK চাপি তবে আমাদের নতুন আঁকা বক্সটিও আগে থেকে সিলেক্ট করা রং-এ ভরে যাবে যেটা আমরা চাচ্ছি না। তাই Use অপশনের পাশের Color লেখাটির উপর ক্লিক করে আবারো Color সিলেক্ট করি। রং-এর বক্স চলে এল। পছন্দমত আবার রং বেছে নিই। এবার অন্য একটি রং নিতে হবে
OK-তে ক্লিক করতে হবে। তারপরে Fill dialog box-এ ও OK চাপতে হবে। নতুন বক্সটিও রঙে পূর্ণ হয়ে যাবে। এবার আউটলাইন ডিলিট করে ফেলুন। আগের মতই Select মেনু >Deselect অপশন। হয়ে গেল দুই রং-এর দুটি আয়তাকার বক্স-কাজ শেষ।
আসুন এবার কথা বলি আমাদের মুল পয়েন্ট লেয়ার প্যানেল নিয়ে (স্ক্রীন-র ডান পাশে নিচে)। দেখা যাচ্ছে,শুধুমাত্র একটা লেয়ার-এর উপর দুটি বক্স,সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড-সবকিছু ।
তারমানে এই ছোট কাজটুকুর জন্য হয় আমাদের Undo করতে করতে ঐ পর্যন্ত যাওয়া লাগবে,নতুবা সব আবার প্রথম থেকে করা লাগবে।
কাজ শুরুর আগে প্রথমেই ডকুমেন্ট টি সাদা রং সিলেক্ট করে নিবো। যেন আগের বক্স দুইটি ঢেকে যায়। এজন্য স্ক্রীন-এর উপরের Edit মেনুতে গিয়ে Fill সিলেক্ট করতে হবে। Fill Dialog Box-টি আসলে Use অপশন-এর Color কে White-এ পরিবর্তন করতে হবে।
OK অপশনে ক্লিক করতে হবে। তারপরে আপনি দেখতে পাবেন ডকুমেন্ট টি সাদা হয়ে গেছে। এবার আমরা যেখান থেকে শুরু করেছিলাম আবার সেখানেই ফিরে যাই।
যেহেতু এবার আমর লেয়ার ব্যবহার করবো, তাই চলুন প্রথমেই একবার দেখে নেয়া যাক লেয়ার প্যানেল-এ কি কি রয়েছে (স্ক্রীন-র ডান পাশে নিচে)। আপনি দেখতে পারবেন, এই মুহূর্তে আমাদের ডকুমেন্ট এ শুধু একটিমাত্র লেয়ার রয়েছে যেটাকে আমরা বলব ব্যাকগ্রাউন্ড। লেয়ার নামের পাশের ছোট চারকোনা বক্স থেকে আমরা জানতে পারব যে, কোন লেয়ারে কি আছে। যেহেতু এই মুহূর্তে আমাদের লেয়ারটি সম্পূর্ণ সাদা, তাই লেয়ারের নামের পাশের বক্সটিও সাদা হয়ে আছে।
এবারে কাজ শুরু করা যাক। সাদা ব্যাকগ্রাউন্ডটিই হল আমাদের ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ার। এখন প্রথম আয়তাকার বক্সটি আঁকার জন্য আমাদের নতুন একটি লেয়ার যোগ করতে হবে। নতুন লেয়ার যোগ করার জন্য লেয়ার প্যানেল থেকে New Layer আইকনটিতে ক্লিক করতে হবে (প্যানেলের নিচের ডান পাশ থেকে ২ নং)
লেয়ার প্যানেলে দেখুন ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ারের উপর একটি নতুন লেয়ার দেখা যাচ্ছে। ফটোশপ থেকে এর অটোমেটিক নাম হয়েছে Layer 1. লেয়ারের নামের পাশের দাগ কাটা ঘর দিয়ে বোঝানো হচ্ছে এই লেয়ারটি ফাঁকা। নতুন লেয়ারটিকে হাইলাইট করে দেখান হয়েছে যা থেকে বোঝা যায় এই লেয়ারটি এখন কার্যকর আছে। অর্থাৎ আমরা এখানে যে যে ডিজাইন করবো তা Layer 1-এ যোগ হবে।
এবারে এই নতুন লেয়ারে আমাদের প্রথম আয়তাকার বক্সটি যোগ করবো। আগের মতই প্রথমে টুল প্যানেল থেকে Rectangular Marquee Tool সিলেক্ট করে সাদা ডকুমেন্টের যে কোন এক জায়গায় ক্লিক করে ও টেনে একটি আয়তাকার বক্স এঁকে নিবেন।
রং সিলেক্ট করার জন্য আগের মতই স্ক্রীন-এর উপরের Edit মেনুতে গিয়ে Fill সিলেক্ট করতে হবে। Fill Dialog Box টি আসলে Use অপশনটিকে Color–এ পরিবর্তন করে এবং Ok অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে। রং-এর বক্স থেকে রং সিলেক্ট করা হয়ে গেলে আবার Ok অপশনে ক্লিক করতে হবে। ধরুন এবারো আগের মতই লাল রং নির্বাচন করলাম। বক্সটিতে রং আসলে আউটলাইন ডিলিট করার জন্য উপরের Select মেনু থেকে Deselect অপশন টি সিলেক্ট করতে হবে। প্রথম বক্সের কাজ শেষ।
এই মুহূর্তে আমাদের লেয়ার পানেল-র কি অবস্থা চলুন আরেকবার দেখে নেয়া যাক। ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ারটি আগের মতই সাদা কিন্তু Layer 1-এর পাশের ঘরটি লাল রং হয়ে গেছে এবং দুটি লেয়ার পরস্পর থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে গেছে।
এবার আমরা আমাদের দ্বিতীয় বক্সটি আঁকবো। দ্বিতীয় বক্সটির জন্যও নতুন আরেকটা লেয়ার দরকার। আগের মত লেয়ার-প্যানেলে New Layer আইকনটি সিলেক্ট করলেই একটি লেয়ার চলে আসবে।
লেয়ার প্যানেলে Layer 1-এর উপরে Layer 2 নামে নতুন আরেকটি ফাঁকা লেয়ার দেখা যাবে।
এবার Layer 2-এর সাহায্যে নতুন আরেকটি বক্স এঁকে নিই, যেন নতুন বক্সটি লাল বক্সটির উপর কিছুটা উঠে থাকে। রং সিলেক্ট করার জন্য আগের মতই উপরের Edit মেনু থেকে Fill সিলেক্ট করতে হবে। তারপর Use অপশনে Color পুনরায় নির্বাচন করে নিতে হবে। তার পরে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে। রং-এর বক্স থেকে আগের মতই সবুজ রং সিলেক্ট করে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে। আউটলাইন ডিলিট করার জন্য আগের মতো উপরের Select মেনু থেকে Deselect অপশন নির্বাচন করতে হবে। এবার আপনি পেয়ে যাবেন ভিন্ন রবগ-এর দুটি বক্স।
লেয়ার প্যানেলের দিকে তাকালে দেখতে পারবেন, সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড, লাল বক্স এবং সবুজ বক্স আলাদা আলাদা তিনটি লেয়ারে রয়েছে।
সবুজ বক্সটি ও লাল বক্সটির উপর উঠে আসে কেননা লেয়ার প্যানেলে সবুজ বক্সের লেয়ার (Layer 2)-টি লাল বক্সের লেয়ারের (Layer 1) উপরে রয়েছে। বিষয়টি ভালভাবে বোঝার জন্য লেয়ার প্যানেলের নিচ থেকে উপর দিকে আরেকবার দেখুন। প্রথমেই রয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ড লেয়ার, তার উপরে লাল বক্সের লেয়ার এবং তার উপরে সবুজ বক্সের লেয়ার। এবার আপনার ডিজাইনের দিকে লক্ষ্য করুন। প্রথমে সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড, তারপর লাল বক্স এবং তার উপরে সবুজ বক্স দেখতে পাবেন।
এখন আপনি ইচ্ছা করলে খুব সহজেই সবুজ বক্সটির উপর লাল বক্সটিকে তুলে দিতে পারি। এজন্য শুধুমাত্র লেয়ার প্যানেলে লাল বক্সের লেয়ারটিকে সবুজ বক্সের লেয়ারের উপর তুলে দিতে হবে। খুবই সহজ কাজ। লাল বক্সের লেয়ার অর্থাৎ Layer 1-এ ক্লিক করতে হবে
মাউসের বাটনের উপর থেকে আঙ্গুলের চাপ না সরিয়ে Layer 1-কে সোজা উপরে টেনে Layer 2-এর উপর বসাতে হবে। লেয়ারটিকে হাইলাইট করে দেখানোর আগ পর্যন্ত মাউসের উপর থেকে আঙ্গুলের চাপ সরানো যাবে না। লেয়ারটিকে হাইলাইট করে দেখানোর পর মাউসের উপর থেকে হাত সরিয়ে নিন।
লেয়ার প্যানেলে এখন Layer 2-এর উপর Layer 1 অবস্থান করছে এবং ডকুমেন্ট-এ ও সবুজ বক্সের উপর লাল বক্সকে দেখা যাচ্ছে।
দেখা যাচ্ছে, লেয়ারের সাহায্যেই আমরা আমাদের পছন্দ মত পরিবর্তনটুকু খুব সহজেই করতে পারলাম।এভাবেই আপনি লেয়ার ব্যবহার করে অনেক ভালো ধরেন কাজ খুব সহজেই করতে পারবেন। আশা করি আমার লেখা আপনাদের সবার ভালো লাগবে। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি, আসসালামুআলাইকুম।

আপনার মতামত লিখুনঃ